vlxxviet mms desi xnxx

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড 2022

5

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড | jonmo nibondhon online copy download

জন্ম নিবন্ধন করা প্রতিটি শিশুর মৌলিক অধিকার। তাই বাংলাদেশ সরকার জন্ম নিবন্ধন সকল নাগরিকের জন্য বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা করেছে। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের কাজে জন্ম নিবন্ধন সনদ বাধ্যতামূলক কাজে লাগে। তাই শিশু জন্ম হওয়ার পরবর্তী সময়ে জন্ম নিবন্ধন অফিসে গিয়ে জন্ম নিবন্ধন করতে হয়। কিন্তু জন্ম নিবন্ধন অফিসে গিয়ে ঘোরাঘুরি করার পর অনেক সময় জন্ম নিবন্ধন করার সুযোগ হয়ে ওঠে না। তাই ইন্টারনেট এখন এর সমাধান করে দিয়েছে। ইন্টারনেট ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন।

গুরুত্বপূর্ণ: অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন.

অনলাইনের মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করার ক্ষেত্রে আপনাকে পূর্ব মুহূর্তে কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। অনলাইনের মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন আবেদন করতে হবে। এরপর ফরম পূরণ করে জমা দিতে হবে। এ সকল পদ্ধতি আমরা আপনাকে খুব সহজেই বুজিয়ে দিব। ভাবছেন এটি অনেক কঠিন হবে হয়তো। না, একদমই না, কাজটি একদম সহজ শুধুমাত্র কিছু সঠিক পথ অবলম্বন করলেই পেয়ে যাবেন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি। চলুন তাহলে জেনে নেই জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড ২০২২ সম্পর্কে।

জন্ম নিবন্ধন কি?

জন্ম নিবন্ধন সনদ হচ্ছে একটি শিশুর মৌলিক অধিকার রক্ষার মূল দলিল। আর এটি সংগ্রহ করা  প্রত্যক নাগরিকের জন্য বাধ্যতামূলক করেছে বাংলাদেশ সরকার।

জন্ম নিবন্ধন সনদ হচ্ছে একটি শিশুর জন্ম নিবন্ধন আইন পত্র। যা জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদের অনুচ্ছেদ ৭ অনুযায়ী ২০০৪ সালের ২৯ নং আইনের আওয়াতায় একটি শিশুর জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ। আর এই সনদে শিশুর নাম, লিঙ্গ, জন্মের তারিখ, বাবা- মায়ের নাম এবং ঠিকানা উল্লেখ করে রেজিস্টার করা হয়।

এই রেজিস্টার পত্রটি সরকারি খাতায় যুক্ত করা থাকে। এবং সরকার কর্তৃক সাধারণ মানুষকে যে পত্র দেয়া হয় সেটি হচ্ছে মূলত জন্ম নিবন্ধন সনদপত্র। মূলত জন্ম নিবন্ধন পত্র কে পরিচয় পত্র বলে গণ্য করা যাবে।

জন্ম নিবন্ধন কি কি কাজে লাগে

সরকারি বেসরকারি অনেক খাতে জন্ম নিবন্ধন এর প্রয়োজন হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে চাকরি পাওয়া পর্যন্ত সকল কাজে জন্ম নিবন্ধন কাজে লাগে। জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকলে জন্ম নিবন্ধন পত্র ব্যবহার করা যায়। জন্ম নিবন্ধন যে যে কাজে লাগে তা নিম্নে দেয়া হলঃ

  • জাতীয় পরিচয়পত্র প্রাপ্তি।
  • বিবাহ নিবন্ধন।
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু।
  • ভোটার তালিকা প্রণয়ন।
  • ব্যাংক হিসাব খোলা।
  • পাসপোর্ট ইস্যু।
  • গ্যাস, পানি, টেলিফোন ও বিদ্যুৎ সংযোগ প্রাপ্তি।
  • টিআইএন বা ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার প্রাপ্তি।
  • ঠিকাদারি লাইসেন্স প্রাপ্তি।
  • ট্রেড লাইসেন্স প্রাপ্তি।
  • বাড়ির নকশা অনুমোদন প্রাপ্তি।
  • গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্তি।
  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
  • আমদানী ও রপ্তানি লাইসেন্স প্রাপ্তি।
  • সরকারী, বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ।
  • জমি রেজিস্ট্রেশন।

এছাড়াও আরও অনেক কাজে লেগে থাকে জন্ম নিবন্ধন সনদ।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের অনলাইন জন্ম নিবন্ধন তথ্য ব্যবস্থা বা Online BRIS ওয়েবসাইটটিতে যেতে হবে। এর পর এর প্রদত্ত তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করতে করে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করার নিয়ম দেয়া হলো ”ভালভাবে পড়ুন”:

  • প্রথমে,অনলাইন জন্ম নিবন্ধন তথ্য ব্যবস্থা বা Online BRIS ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করতে হবে।
  • ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশের পর একটি ওয়েবপেজ দেখতে পাবেন। যা দেখতে এই রকম হবে।
  • আপনার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে প্রথম খালি বক্সে যার জন্ম নিবন্ধন তথ্য যাচাই করতে চান। তারপর জন্ম নিবন্ধন সনদ এ থাকা ১৭ ডিজিটের নাম্বার প্রদান করুন।
  • দ্বিতীয় বক্সে যার জন্ম নিবন্ধন সনদে থাকা জন্ম তারিখ প্রদান করুন।
  • আর কারো জন্ম তারিখ যদি ১৯৯০ সালের জানুয়ারীর ১ তারিখ হয় তাহলে দ্বিতীয় বক্সটিতে (1990-01-01) এভাবে লিখতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড

  • দুইটি বক্সেই সঠিক তথ্য প্রদান করা হয়ে গেলে ভেরিফাই (Verify) – তে ক্লিক করতে হবে। 
  • ভেরিফাই (Verify) – তে ক্লিক করার পর যার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করবেন তার জন্ম নিবন্ধনে থাকা সকল তথ্যগুলো স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে।
  • প্রদর্শিত তথ্যগুলো সঠিক কিনা তা যাচাই করে নিতে হবে। আর যদি ভেরিফাই (Verify) – তে করার পর Matching Birth Records Not Found লেখা আসে তাহলে উল্লিখিত বক্সে দুইটিতে প্রদত্ত জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বা জন্ম তারিখ যেকোনো একটিতে ভুল দেয়া হয়েছে।

উল্লেখিত পদ্ধতি সঠিকভাবে অনুসরণ না করলে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধনের অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন না।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন

আপনারা এখন ঘরে বসে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করতে পারবেন খুব সহজেই। আর তাঁর জন্য আপনাকে অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে হবে। অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করার জন্য আপনাকে যা যা করতে হবে তা হচ্ছেঃ

  • প্রথমে এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। যা দেখতে এই রকম হবে।
  • এখন জন্ম নিবন্ধন সনদ আপনি কোন ঠিকানার অফিস থেকে সংগ্রহ করতে চান তা নির্বাচন করুন। পরবর্তী ধাপে প্রদর্শিত পেজে দেওয়া সকল তথ্য সাবধানতার সাথে সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন

  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণ করার জন্য প্রথমে বাংলায় (ইউনিকোড) ও পরবর্তীতে ইংরেজিতে পূরণের পর প্রয়োজনীয় সম্পাদনা করে সংরক্ষনে ক্লিক করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন ফরম কোথায় পাওয়া যাবে

  • এরপর আবেদন পত্রটি সংশ্লিষ্ট নিবন্ধক কার্যালয়ে স্থানান্তিরত হয়ে যাবে।  
  • এখন  প্রিন্ট বাটনে ক্লিক করলে আবেদন পত্রের মুদ্রিত কপি পেয়ে যাবেন। যা পরবর্তীতে জন্ম নিবন্ধন পত্র গ্রহনে আই প্রিন্ট কপি প্রয়োজন হবে। 
  • এরপর  ১৫ দিনের মধ্যে উক্ত আবেদন পত্রে নির্দেশিত প্রত্যয়ন সংগ্রহ করে, প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্রের সত্যায়িত কপিসহ নিবন্ধক অফিসে যোগাযোগ করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন ফরম কোথায় পাওয়া যাবে?

বাংলাদেশের জন্ম নিবন্ধন সনদ কার্যালয়ে বা br.lgd.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করলেই আপনারা জন্ম নিবন্ধন ফরম ডাউনলোড করা যাবেকরতে পারবেন। আর এই ফরমটি PDF আকারে ডাউনলোড করতে পারবেন। যা দেখতে এ রকম হবে।

জন্ম নিবন্ধন ফি 2022

জন্ম নিবন্ধন ফি সকল ক্ষেত্রে নেয়া হয় না। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে নেয়া হয়। আর সে গুলো হচ্ছে-

  • যদি কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিন এর মধ্যে আবেদন করা হয় তাহলে ঐ ব্যক্তির কোন জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন করার ক্ষেত্রে কোন ফি নেয়া হবে না।
  • যদি কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিন পর হইতে ৫ (পাঁচ) বৎসর পর্যন্ত কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন করা হয় তাহলে ২৫ টাকা ফি প্রদান করতে হবে। যা মার্কিন ডলারে আসবে ১ ডলার।
  • জন্ম তারিখ সংশোধন করার জন্য ১০০ টাকা আবেদন ফি প্রদান করতে হবে।যা মার্কিন ডলারে আসবে ২ ডলার।
  • বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় মূল সনদ বা তথ্য সংশোধনের পর সনদের কপি সরবরাহ করতে চাইলে তা সম্পূর্ণ ফ্রি – তে করা যাবে।
  • বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় জন্ম নিবন্ধন সনদের নকল সরবরাহ করতে চাইলে ৫০ টাকা প্রদান করে নিতে হবে। যা মার্কিন ডলারে আসবে ১ ডলার।

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই । জন্ম তারিখ দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই

আপনার জন্ম নিবন্ধন পত্রটি সঠিক কিনা তা যাচাই করার জন্য অনলাইনের মাধ্যমে আপনারা এখন খুব সহজে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন। বিভিন্ন কারণে আমরা আমাদের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করে থাকে কিন্তু অনলাইনের মাধ্যমে কিভাবে।

আমরা জন্ম নিবন্ধন যাচাই করবো তা আমরা জানি না। তাই আজ আমরা আপনাদের জন্য একটি আর্টিকেল নিয়ে এসেছে যেখান থেকে আপনারা খুব সহজভাবে অনলাইনের মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন পত্র কিভাবে যাচাই করা হয় জানতে পারবেন। তাহলে শুরু করি আমাদের আজকের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই বিষয়টি। 

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই

জন্ম নিবন্ধন যাচাই করা কঠিন কাজ নয়। আপনি অনলাইন নিজেই তথ্য দিয়ে আপনার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন। তবে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার জন্য আপনার যে তথ্যের প্রয়োজন তা হচ্ছে জন্ম নিবন্ধন নম্বর এবং জন্ম তারিখ। আপনারা অনলাইনের মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন তার নিয়ম নিম্নে দেয়া হল-

প্রথমে আপনাদের জন্ম নিবন্ধন এর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। জন্ম নিবন্ধন ওয়েবসাইট এর লিঙ্ক হচ্ছে-bdris.gov.bd/br/

এরপর জন্ম নিবন্ধন তথ্য অনুসন্ধান করুন নামক একটি লিখা আসবে সেখানে জন্ম নিবন্ধন নম্বর এবং জন্ম তারিখ উল্লেখ করে অনুসন্ধান বাটনে ক্লিক করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক

কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর আপনার জন্ম নিবন্ধন এর সকল তথ্য চলে আসবে। তখন আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন পত্রের সকল তথ্য সঠিকভাবে দেখে নিতে পারবেন। এভাবে আপনারা অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন পত্র যাচাই করতে পারবেন।

জন্ম তারিখ দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই

জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার জন্য জন্মতারিখ একান্ত প্রয়োজন। নতুবা আপনারা জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন না। জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার জন্য অবশ্যই জন্ম নিবন্ধন নম্বর এবং জন্মতারিখ এর প্রয়োজন হয়। জন্মতারিখ কোথায় কিভাবে দিতে হয় তা আমরা আগে দেখিয়ে দিয়েছি।

জন্ম নিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক apps

বর্তমান সময়ে আপনারা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার পাশাপাশি আপনারা জন্ম নিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক করার জন্য অ্যাপস ব্যবহার করতে পারবেন। আর এই অ্যাপসটি আপনারা খুব সহজেই গুগল প্লে স্টোরে পেয়ে যাবেন।

  • প্রথমে আপনাদের ডিভাইসে ইন্টারনেট কানেকশন দিতে হবে।
  • এরপর গুগল প্লে স্টোর থেকে সার্চ অপশনে গিয়ে জন্ম তথ্য যাচাই ও নিবন্ধ লিখে সার্চ করলে আপনারা জন্ম নিবন্ধন এর অ্যাপস পেয়ে যাবেন।
  • এখন সেখান থেকে অ্যাপসটি ইন্সটল করে নিতে হবে।
  • ইন্সটল হয়ে গেলে অ্যাপসটি ওপেন করে ওয়েবসাইটের মতো করে আপনারা জন্ম নিবন্ধন নম্বর এবং জন্মতারিখ অনুসন্ধান নামক বাটনে ক্লিক করলে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন।

আপনাদের সুবিধার্থে আমরা জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার জন্য অ্যাপস এর লিঙ্ক নিম্নে দিয়ে দিচ্ছি। জন্ম তথ্য যাচাই ও নিবন্ধন

জন্ম নিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক

জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি

আশা করছি আপনারা আমাদের আর্টিকেল পরে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে শিখিয়ে গিয়েছেন। কিন্তু জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি কিভাবে সংগ্রহ করবেন? জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি সংগ্রহ করা একদম সহজ।  আপনি যখন জন্ম নিবন্ধন যাচাই করবেন তখন সেখানে প্রিন্ট নামক একটি অপশন দেখতে পাবেন। অথবা কিবোর্ড থেকে clt+p বাটন প্রেস করলে আপনাদের প্রিন্ট অপশন চলে আসবে.

সেখান থেকে আপনারা জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি প্রিন্ট করে নিতে পারবেন। অথবা আপনারাই স্ক্রিনশট নিয়ে প্রিন্ট কপি সংগ্রহ করতে পারবে।

জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড

আপনার জন্ম নিবন্ধন করার এখানে ক্লিক করতে পারেন  br.lgd.gov.bd

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন

আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদেএ কোন তথ্য ভুল হলে দুশ্চিন্তা করার প্রয়োজন নেই। এর সমাধান রয়েছে। আপনি যদি সঠিক পথ অবলম্বন করেন তাহলে খুব সহজেই জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে পারবেন। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার অনলাইনের আবেদন করতে পারবেন। আর তার জন্য  “জন্ম তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন” একটি ওয়েবসাইট রয়েছে। নিম্নের এর কার্যক্রম উল্লেখ করা হল।

  • প্রথমে “জন্ম তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন” ওয়েবসাইতে প্রবেশ করুন। প্রবেশ করার পর ওয়েবসাইটটি দেখতে এই রকম হয়।
  • এখানে দুইটি খালি বক্স দেখতে পাবেন। সেখানে আপনার জন্ম নিবন্ধনের ১৭ ডিজিটের নাম্বার এবং জন্ম তারিখ দিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন

  • এরপর সঠিক ভাবের তথ্য প্রদান করে অনুসন্ধানে ক্লিক করতে হবে। 
  • ক্লিক করার পর সার্ভারে আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদের সকল তথ্য প্রদর্শন করবে। 
  • তারপর আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন সম্পর্কিত সকল তথ্য দেখতে পারবেন সেগুলো অনুসরন করে আবেদন করতে হবে।

প্রথম বক্সে জন্ম সনদে থাকা জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও দ্বিতীয় বক্সে জন্ম সনদে থাকা জন্ম তারিখ প্রদান করুন। সঠিক জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও জন্ম তারিখ প্রদান করতে সার্ভারে থাকা জন্ম সনদ সম্পর্কিত তথ্য দেখতে পাবেন।

আরো দেখুনঃ জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম.

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর উল্লিখিত ওয়েবসাইটে সঠিক তথ্য দেওয়ার পর জন্ম নিবন্ধন সংশোধন সম্পর্কিত তথ্য স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে। প্রদত্ত তথ্য অনুসরণ করে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর আবেদন করতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রশ্ন: ১৬ ডিজিট বা ১৭ ডিজিটের কম জন্ম নিবন্ধন নম্বর কিভাবে ১৭ ডিজিটে আপডেট করা যাবে?

উত্তরঃ ১৬ ডিজিট বা ১৭ ডিজিট জন্ম নিবন্ধন নম্বর ঠিক করার জন্য আপনার পুরাতন জন্ম নিবন্ধন সনদ ইউনিয়ন পরিষদ/ পৌরসভা/ সিটি কর্পোরেশনের অফিসে জমা দিতে হবে। সেখানে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে নতুন জন্ম সনদ জন্য আবেদন করতে হবে।

প্রশ্ন: কিভাবে জন্ম নিবন্ধন বাংলা থেকে ইংরেজি করা যায়?

উত্তরঃ জন্ম নিবন্ধন বাংলা থেকে ইংরেজি করার জন্য আপনাদের জন্ম নিবন্ধন আবেদন করার সময়ে বাংলা এবং ইংরেজি উভয় ভাষায় জন্ম নিবন্ধন ফরম ফিলাপ করে আবেদনপত্রটি সাবমিট করতে হবে।

প্রশ্ন: অনলাইনে ছাড়া অফলাইনে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন করা যাবে কি?

উত্তরঃ অনলাইন ছাড়া অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন অবশ্যই করা যাবে। সে ক্ষেত্রে আপনাদের কে আপনাদের নিকটস্থ ইউনিয়ন পরিষদ/ পৌরসভা/ সিটি কর্পোরেশনের অফিসে জন্ম নিবন্ধন ফরম ফিলাপ করে আবেদন করতে হবে।

প্রশ্ন: পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ছাড়া জন্ম নিবন্ধন সনদের আবেদন করা যাবে কি?

উত্তরঃ পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর ছাড়া জন্ম নিবন্ধন সনদের আবেদন করা যাবে না। এই আইনটি প্রণয়ন করা হয়েছে ২০২১ সালের ১লা জানুয়ারিতে। এই আইনে বলা হয়েছে যে ২০০১ সালের পর থেকে জন্মগ্রহণকারী সকলের জন্ম নিবন্ধন করতে হলে তার পিতামাতার অবশ্যই জন্ম নিবন্ধন। ২০০১ সালের পূর্বে যেসকল ব্যক্তিবর্গ জন্মগ্রহণ করেছেন তাদের পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন প্রয়োজন হবে না।

প্রশ্ন: UISC উদ্যোক্তারা কিভাবে নতুন জন্ম নিবন্ধন করবে?

উত্তরঃ UISC উদ্যোক্তারা হচ্ছেন Data Entry Operator. তারা শুধুমাত্র ম্যানুয়াল খাতা ভুতের অনলাইনের এন্ট্রি করবেন। আর নতুন জন্ম নিবন্ধন করতে পারবেন ইউনিয়ন পরিষদ সচিব বা  Authorized Person হতে। Authorized Person ছাড়া অন্যান্য সরকারি উপায় নতুন জন্ম নিবন্ধন করতে পারবেন না।

প্রশ্ন: নতুন জন্ম নিবন্ধন কি ম্যানুয়াল খাতায় লিখতে হবে?

উত্তরঃ নতুন জন্ম নিবন্ধন ম্যানুয়াল খাতায় লিখতে হবে না।

প্রশ্ন: একই সনদ ২য় বার ইস্যু করা হলে নিবন্ধক কোন তারিখে সনদ এ স্বাক্ষর করবে?

উত্তরঃ একই সনদ দ্বিতীয়বার ইস্যু করলে নিবন্ধক প্রথমবার যে জন্ম সনদ ইস্যু করা হবে সেই সনদের নিবন্ধক স্বাক্ষর করবেন। কারণ প্রথমবার যে জন্ম সনদ ইস্যু করা হয়েছে সেই জন্ম সনদের তারিখ এন্ট্রি হয়ে গিয়েছে। সুতরাং তারিখ অনুসারে জন্ম নিবন্ধন তার স্বাক্ষর প্রদান করবে।

প্রশ্ন: অনলাইন আবেদনের ক্ষেত্রে বাংলা লেখা না হলে কী করতে হবে?

উত্তরঃ অনলাইনে আবেদন করার ক্ষেত্রে বাংলা লেখা না হলে অবশ্যই বাংলা লেখার সফটওয়্যার ডাউনলোড করে নিতে হবে। আপনার কম্পিউটারে বাংলা লেখার সফটওয়্যার ডাউনলোড করে ইন্সটল করলে আপনারা বাংলা লিখতে পারবেন। বাংলা লেখার Unicode Software হচ্ছে- Bijoy Bayanno and Avro.

প্রশ্ন: বিদেশে জন্ম হলে দেশে জন্ম নিবন্ধন করা যাবে কি?

উত্তরঃ কোন শিশু যদি বিদেশে জন্মগ্রহণ করে তখন  তাকে দেশের জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করার জন্য অবশ্যই প্রামাণ্য দলিল হিসেবে তাকে দেশের স্থায়ী নাগরিক প্রমাণ করতে হবে। এবং স্থায়ী ঠিকানা নিয়ে জন্ম নিবন্ধন সনদ এর আবেদন করতে হবে।

প্রশ্ন: একই ব্যক্তি একাধিকবার জন্ম নিবন্ধন করতে পারবে কি?

উত্তরঃ ২০০৪ সালের ২১ ধারা অনুসারে জন্ম নিবন্ধন একই ব্যক্তি একাধিকবার জন্ম নিবন্ধন করতে পারবে ন।

উপসংহার: মানুষ এখন সব কাজ অনলাইনে করে থাকে। কারন মানুষের এখন অনেক সময় স্বল্পতা থাকে তাই এখন সবাই অনলাইন মুখি হয়ে পড়েছে। আপনার জন্ম নিবন্ধন সম্পরকিত সকল কাজ অনলাইনে এখন খুব সহজে করতে পারবেন। অনেক সময় জন্ম নিবন্ধন করার জন্য নিবন্ধন কার্যালয় গেলে অনেক কারনে জন্ম নিবন্ধন পেতে সময় লেগে যায় তাই অনলাইনে করা অনেক সুবিধে রয়েছে।

আশা করি আপনারা আমদের এই আরটিকেলটি পরে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড ২০২২ সম্পর্কে সকল সঠিক ধারনা পেয়ে যাবেন । যা আপনার জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড সমস্যা সমাধান করতে সাহায্য করবে।

You might also like
5 Comments
  1. Sagor Das says

    জন্ন নিবন্ধন করতে৷ চাই আমার নাই কি করব একটু বলবেন

    1. Asikur Rahman Naim says

      অনলাইনে আবেদন করুন, ইউনিয়ন পরিষদে যোগাযোগ করুন, আর্টিকেলটি ভালোভাবে পড়লে বুঝতে পারবেন.

  2. amir info bangla says

    আপনাকে অনেক ধন্যবাদ । এই রকম একটি তথ্যপুর্ণ আর্টিকেল দেওয়ার জন্য । আমরা এইরকম আর্টিকেল আরো চাই । ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন ।

  3. Rubel says

    Hi

  4. Sakib says

    ধন্যবাদ

Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex