vlxxviet mms desi xnxx

ডাটা এন্ট্রি কি

0

আমার ইনকাম করার কথা যখন আমাদের মাথায় আসে তখন সর্বপ্রথম কাজটির কথা আমাদের মাথায় আসে তাহলে ডাটা এন্ট্রি। এর কারণ হচ্ছে আমরা ডাটাএন্ট্রির কথা এতটা শুনেছি যে অনলাইন ইনকাম কথাটি শুনলেই আমাদের ব্রেন ডাটাএন্ট্রির দিকে ট্রিগার করেন। করোনাকালীন সময়ে আমাদের সবারই বাসায় বসে কিছু আয় করার ইচ্ছা জেগেছে। তাই আজ আমরা এই আর্টিকেলের মাধ্যমে জানতে পারবো ডাটা এন্ট্রি কি? ও ডাটা এন্ট্রি করে আয় করবেন কীভাবে? জানি বিষয়গুলো আপনার কাছে খুবই জটিল মনে হচ্ছে কিন্তু প্রমিস করছি আজ আমি আপনাদের পুরো বিষয়গুলো নিয়ে যাব।আসুন ডাটা এন্ট্রির বিষয়টি শুরু থেকে শুরু করি।

ডাটা এন্ট্রি কি?

ডাটা অর্থ তথ্য আর এন্ট্রি হচ্ছে সংগ্রহ করা। বিশেষ কোনো তথ্যগুলোকে সংগ্রহ করে লিপিবদ্ধ করার নামই Data entry। Data entry সাধারণ কম্পিউটারের মাধ্যমে করা হয় একটি এলোমেলো তথ্য কে বা বিভিন্ন জায়গা থেকে সংগ্রহ করে একটি পূর্ণাঙ্গ তথ্য তৈরীর সঠিক পদ্ধতি হচ্ছে Data entry। 

ডাটা এন্ট্রি অপারেটর কাজ কি?

আজকাল সব ধরনের প্রতিষ্ঠানেই Data entry অপারেটরের প্রয়োজন পড়ে কারণ এর মাধ্যমে কোম্পানির সকল ডাটা একটি ফাইল ইনপুট করে রাখা হয়। ডাটা এন্ট্রির কাজ করতে হলে অবশ্যই ms office , Ms Excel , Google sheets , এবং Microsoft word সফটওয়্যার গুলোর ব্যবহার ভালোভাবে জানতে হবে।

ডাটা অপারেটর এর বিভিন্ন ধরনের কাজ থাকে যেমন ধরুন:

  1. আপনাকে একটি ওয়ার্ড ফাইল দেয়া হলো এবং বলা হলো এবার ফাইলটি আপনি পিডিএফ-এ কনভার্ট করে দিবেন। 
  2. অফিসার আপনাকে একটি পিডিএফ ফাইল গেল এবং বলল এইগুলো ওয়ার্ডে টাইপ করে দিন ।
  3. আপনাকে ফাইবার একটি অর্ডার করা হলো যে আমি আপনাকে কিছু কাগজের ছবি দিচ্ছি এই কাগজের লেখাগুলো আপনাকে আমাকে ওয়ার্ড ফাইলে টাইপিং করে দিতে হবে।
  4. বিভিন্ন ধরনের প্রোগ্রাম আমাদের দেশে থাকে যা বড় বড় কোম্পানি অরগানাইজ করে তখন Data entry অপারেটরের কাজ হয় প্রোগ্রাম এর সকল তথ্য কে গুগোল শিটে সংগ্রহ করে রাখা। 

আশাকরি ডাটা এন্ট্রি কি ও এর কাজ সম্পর্কে আপনারা সঠিক ধারণা পেয়ে গিয়েছেন।

ডাটা এন্ট্রি করে আয় করবেন কীভাবে?

ডাটা এন্ট্রির মাধ্যমে আয় করতে পাঁচটি মাধ্যম শেয়ার করব ।

১: অফিসিয়াল ওয়ার্ক

আপনি যখন একটি অফিসে ডাটা এন্ট্রির অফিসিয়াল ওয়ার্ক করবেন তখন আপনাকে কোম্পানির সেল পারচেস ফিডব্যাক সহ যাবতীয় সকল তথ্য Data entry করতে হবে। নোট বা হার্ডকপি থেকেই যাবতীয় সব তথ্য এমএস এক্সেলে ইনপুট করতে হয়।

এটি খুবই সহজ মাধ্যম ইনকাম করার। আর বর্তমানে বেশিরভাগ কোম্পানি ডাটা এন্ট্রির জন্য আলাদা মানুষ কাজে নিয়ে থাকে যার কারণে এই কাজটি খুবই সহজলভ্য হয়ে উঠেছে। কিন্তু আমাদের দেশের কোম্পানিগুলো Data entry অপারেটর দের সঠিক স্যালারি দেয় না ।বাহিরের দেশে এর চাহিদা ও সেলারি অনেক বেশি।

২: স্পেলিং চেকিং

Data entry সেক্টরে আপনি স্পেলিং চেকিং করে ও আপনি হিউজ পরিমান ইনকাম করতে পারবেন। অনলাইন মার্কেটপ্লেসে আপনি অনেক বায়ার পেয়ে যাবেন যারা আপনাকে তার ডকুমেন্ট এর স্পেলিং ঠিক করে দিতে বলবে আর বিনিময়ে আপনাকে অর্থ দিবে।

৩: ডাটা কনভার্শন

ডাটা কনভার্সনের কাজ হল আপনাকে একটি ফরমেট থেকে অন্য ফরম্যটে ডাটা এন্ট্রি তথ্যগুলো সংগ্রহ করে ওনার কে দিতে হবে। এই কাজটি খুবই কম সময়ে আপনি করতে পারবেন আর ওনার এর থেকে ভালো রকমের অর্থ আয় করতে পারবেন।

৪: ট্রানসলেশন

Data entry তে ট্রান্সলেশন কাজটি খুবই আধুনিক এখানে আপনাকে অডিও ফাইল দিতে হবে যার মাধ্যমে আপনি শুনে শুনে সেটিকে ওয়ার্ড ফাইলে কনভার্ট করবেন। এছাড়া আপনাকে একটি ইংলিশ বই ও দিতে পারে যেটিকে আপনাকে বলবে বাংলা করে দিতে। এই কাজটির জন্য আপনি হিউজ পরিমান অর্থ আয় করতে পারবেন।

৫: ডাটাবেস ক্রিয়েশন

ডাটাবেস ক্রিয়েশন কাজ বেশির ভাগ সময় সরকারি অধিদপ্তর থেকে করানোর নির্দেশ দেয়া হয়। কোন গ্রাম দেশ বা এরিয়ার জনসংখ্যা পরিবার ও শিশুদের সংখ্যা জানার জন্যই এই ডাটাবেস ক্রিয়েশন করানো হয়। এই কাজটি আপনাকে গ্রাম এ শহরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে করতে হয়।

ডাটা এন্ট্রি করে কত টাকা আয় করা যায়?

Data entry কাজটি খুবই কম সময়ে শিখেই আয় শুরু কারা যায়। আয় করার জন্য আপনি কোন প্রতিষ্ঠানে গিয়ে কাজ করতে পারেন আবার চাইল ঘরে বসে ইন্টারনেট প্লাটফর্ম এ বসেও কাজ করতে পারেন। ইন্টারনেট প্লাটফর্ম  Fiver Amazon’s mechanical turk service, FlexJobs, Craigslist, Upwork ছাড়াও বিভিন্ন মাধ্যমে মানুষ মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছেন।

গুরুত্বপূর্ণ: বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা

কিন্তু প্রথম প্রথম আপনি এতো টাকা আয় করার স্বপ্ন  দেখবেন না। কারন কোন প্রতিষ্ঠান এর জন্য কাজ করলে আপনাকে মাসে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা দিবে। আর যদি আপনি ইন্টারনেট  মার্কেট প্লেসে কাজ করেন তাহলে প্রতিটি ফাইল এর জন্য আপনাকে ৫ ডলার থেকে ৫০ ডলার পযন্ত দিতে পারে। কিন্তু নতুনদের জন্য প্রথম কিছু কাজ ৫ ডলার এর বেশি পাওয়া যায় না। আস্তে আস্তে আপনার রেংকিং বাড়বে তখন আপনার সার্ভিস এর মূল্য আপনি বাড়াবেন। আর অনলাইন মার্কেটপ্লেসে কাজ করলে আপনি মাসে প্রথম প্রথম ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতপ পারবেন।

শেষ কথা: আশাকরি আপনারা আজ পুরোপুরি Data entry কি বিষয়টি আপনাদের জানা হয়ে গেছে। এই Data entry নিয়ে আপনি যদি ক্যারিয়ার গঠন করেন তাহলে আপনাকে ধৈর্য ধরে করতে হবে। আর্টিকেল টি নিয়ে কোন মন্তব্য থাকলে কমেন্ট এ অবশ্যই জানাবেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex