vlxxviet mms desi xnxx

ব্যাকরণ কাকে বলে?

0

ব্যাকরণ কাকে বলে? | ব্যাকরণ এর প্রয়োজনীয়তা

বাংলা ভাষা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান হচ্ছে ব্যাকরন। ব্যাকরন ছাড়া বাংলা ভাষা অসম্পূর্ণ। কারণ আমরা একটি বাক্য গঠন করার জন্য আমরা যেই ধরনের শব্দ ব্যবহার করি তার সবগুলোই হচ্ছে ব্যাকরণ এর অন্তর্ভুক্ত। বাংলা দ্বিতীয় পত্র বই এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে ব্যাকরন।

আর তাই আজ আমি আপনাদের মাঝে হাজির হয়েছি ব্যাকরণ কাকে বলে এবং অন্যান্য বিষয় সম্পর্ক সম্পূর্ণ আলোচনা করার জন্য। চলুন তাহলে শুরু করি ব্যাকরণ কাকে বলে আজকের গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেলটি।

ব্যাকরণ কাকে বলে?

ব্যাকরণ সম্পর্কে জানা আমাদের সবার আগে আমাদের জানতে হবে ব্যাকরণ কি ব্যাকরণ এর সংজ্ঞা।

যে বিদ্যার্জন বা জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে ভাষা লিখতে, পড়তে এবং বলতে পারা যায় তাকে ব্যাকরণ বলা হয়। ব্যাকরণের প্রধান কাজ হচ্ছে ভাষার শুদ্ধতা যাচাই করা।

অর্থাৎ পরিমার্জিত ভাষায় কথা বলতে, লিখতে এবং পড়তে পারার জন্য যে বিষয়বস্তুসমূহ এর জ্ঞান অর্জন করা প্রয়োজন তাকে বলা হয়।

বিভিন্ন ভাষাবিজ্ঞানীরা তাদের মতবাদ অনুসারে ব্যাকরণ এর সংজ্ঞা প্রদান করেছেন। আর তাদের কিছু নমুনা নিম্নে উল্লেখ করা হলো- 

ভাষাবিজ্ঞানী ডক্টর মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে,

যে শাস্ত্র পাঠ করলে ভাষা শুদ্ধ ভাবে লিখতে, পড়তে ও বলতে পারা যায় তাকে ব্যাকরণ বলে।

ভাষাবিজ্ঞানী ডক্টর সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে,

যে শাস্তির মাধ্যমে কোন ভাষাকে বিশ্লেষণ করে স্বরূপ, প্রকৃতি ও প্রয়োগরীতি বিশেষভাবে নির্ণয় করা যায় সে শাস্ত্রকে ব্যাকরণ বলে।

ডক্টর সুকুমার সেন এর মতে,

যে শাস্ত্রের ভাষার স্বরূপ ও প্রকৃতি বিচার-বিশ্লেষণ করা যায় এবং সেই শাস্ত্র জ্ঞান থাকলে ভাষা শুদ্ধ ভাবে বলতে, লিখতে ও শিখতে পারা যায় তাকে ব্যাকরণ বলে।

ভাষাবিজ্ঞানী ডক্টর মনির চৌধুরি এর মতে,

যে শাস্তির মাধ্যমে ভাষাকে বিশ্লেষণ করা যায় এবং তার উপাদান সমূহের বিচার, পারস্পরিক সম্পর্ক, যোগাযোগের প্রণালী এবং তাদের অশুদ্ধি নির্ণয় করা যায় তাকে ব্যাকরণ বলা হয়।

আরো দেখুনঃ সাহিত্য কাকে বলে?

ব্যাকরণ এর কাজ

আমরা ব্যাকরণের সংখ্যা সম্পর্কে জেনেছি এর পাশাপাশি ভাষাবিদরা ব্যাকরণ কে কিভাবে ব্যক্ত করেছেন তা জেনেছি। এখন আমরা জানবো ব্যাকরণ এর কাজ কি। আর তাই আপনাদের জন্য ব্যাকরণ এর কিছু কাজ নিম্নে তুলে ধরা হচ্ছে-

  • যেকোনো ভাষার নিয়ম-নীতি থাকে। আর লিপিবদ্ধ করা হচ্ছে ব্যাকরণের প্রধান কাজ। যেকোনো ভাষার বিশ্লেষণ করা।
  • যেকোনো ভাষার সৌন্দর্য সৃষ্টি করে ব্যাকরণ এর সাহায্য করা।
  • ব্যাকরণ এর মাধ্যমে সুষ্ঠু জ্ঞান লাভ করা।
  • ভাষা প্রয়োগের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে ব্যাকরণ সহায়তা করে।
  • ভাষা সাহিত্য ও রূপ গ্রহণে সহায়তা করে ব্যাকরণ।
  • ভাষাকে পরিমার্জিত করতে সাহায্য করে ব্যাকরণ।
  • যেকোন ভাষাকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে সাহায্য করে ব্যাকরণ।

ব্যাকরণ এর প্রয়োজনীয়তা

বাসা কে শুদ্ধ ভাবে জানা এবং ব্যবহার করার জন্য ব্যাকরণ পাঠ অপরিহার্য। কারণ ব্যাকরণ এর কাজ হল ভাষাকে সুন্দর, পরিমার্জিত ভাবে উপস্থাপন করা। আর তাই ব্যাকরণ এর কিছু প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে-

ভাষার প্রকৃতি ও স্বরূপ:

আমরা মনের ভাব অনেক ভাবে প্রকাশ করে থাকি। যেমনঃ  ইশারার মাধ্যমে, ইঙ্গিত এর মাধ্যমে, কথা বলার মাধ্যমে এবং ছবি আঁকার মাধ্যমে। তবে এই মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য আমাদের ব্যাকরণ পাঠের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কারণ ব্যাকরণ ভাষার প্রকৃতি ও স্বরূপ বিশ্লেষণ করে ভাষার ভুল ত্রুটি নির্ণয় করে শুদ্ধতা নিশ্চিত করে দেয়।

শব্দের অর্থ, গঠন ও ব্যবহার:

মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য আমরা একটি বাক্যে যে সকল শব্দের ব্যবহার করি সেই সকল শব্দ অবশ্যই অর্থবোধক হতে হবে। আর শব্দের অর্থ নির্ণয়ের জন্য এবং শব্দ গঠনের জন্য অবশ্যই আমাদের রুপ তত্ত্ব সম্বন্ধে জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। শব্দ গঠন ও সংক্ষিপ্ত করার  একমাত্র উপায় হচ্ছে সন্ধি, সমাস, প্রত্যয়, উপসর্গ ইত্যাদি। 

কবিতা ও গানের ছন্দ:

কবিতা ও গানের ছন্দ তৈরি করার জন্য অবশ্যই ভাষা শুদ্ধতার, চটি ত্রুটি-বিচ্যুতি লক্ষ্য রাখতে হয়। এতে করে ছন্দের সঠিক মিলন ঘটে এবং শব্দের সঠিক প্রয়োগ হয়।

সাহিত্য গুন বিবেচনা:

ব্যাকরণ পাঠের মধ্যে সাহিত্য গুণ, রীতি, দোষ, অলংকার প্রভৃতি সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন থাকা অবশ্যই প্রয়োজন।

শুদ্ধ উচ্চারণ ও বানান:

ভাষা লেখার জন্য প্রয়োজন হয় বর্ণ এবং শব্দের। আর ভাষা উচ্চারণ এর জন্য প্রয়োজন হয় ধ্বনির। আর তাই ভাষার বর্ণমালা গুলো সঠিকভাবে উচ্চারণ করা এবং সঠিকভাবে বানান লেখা হচ্ছে ধ্বনিতত্ত্বের আলোচ্য বিষয়। সুতরাং এই সকল বিষয়গুলো গঠনের জন্য একান্ত প্রয়োজন।

বাক্য তৈরি এবং অর্থ প্রকাশ:

মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য বাক্য গঠন করা হয়। আর এই সকল বাক্যের সঠিক অর্থ প্রকাশের জন্য সাধারণ অর্থ, ভাবার্থ ও ব্যঞ্জনবর্ণের অর্থ জানা প্রয়োজন। এছাড়াও সরল বাক্য জটিল বাক্য গঠন সম্পর্কে জানতে হবে কারণ এগুলো হচ্ছে বাক্যতত্ত্বের আলোচ্য বিষয়।

আরে ধরনের বাক্য গঠন তৈরি করার জন্য আমরা কখনও কখনও আবার কখনও কখনও ভীষণ শব্দের ব্যবহার করে থাকি। এছাড়াও বাগধারার এবং উক্তি পরিবর্তন কালে অবশ্যই আমাদের বাক্যতত্ত্বের সাহায্য করে থাকে। 

এককথা বাসাকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার জন্য আমাদের অবশ্যই ব্যাকরণ পাঠের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

আরো দেখুনঃ

উপসংহার: আশা করি আপনারা আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ে ব্যাকরণ কাকে বলে এবং ব্যাকরণ এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন। তাছাড়াও আপনারা যদি ব্যাকরণ সম্পর্কিত আরও তথ্য জানতে চান তাহলে আমাদের অবশ্যই জানাতে পারেন। আমরা আপনাদের মূল্যবান মন্তব্যের জন্য অপেক্ষা করছি, ধন্যবাদ।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex