সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য

0

আপনি কি জানতে চান বাংলাদেশের প্রাকৃতিক দৃশ্য সম্পর্কে ?

সুজলা-সুফলা, শস্য-শ্যামলা আমাদের এই দেশ বাংলাদেশ। আমাদের এই দেশে, প্রকৃতির মায়া যেন আছড়ে আছে প্রতিটি কোণে।  তাইতো আমাদের দেশের প্রাকৃতিক দৃশ্য, একেক সময় একেক রূপ ধারণ করে। এদেশের প্রাকৃতির রূপে, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মুগ্ধ  হয়ে কতশত কবি সাহিত্যিক যে কাব্য রচনা করেছেন, তার সঠিক হিসেব জানা নেই। আমাদের এই দেশটা ঠিক ছবির মতন সুন্দর।

কখনো ছবি দেখেছেন? যেখানে শিল্পীরা রং তুলির মাধ্যমে কোন বাস্তব চিত্রকে সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলে? আমাদের এই দেশটা ঠিক তেমনি। এদেশের প্রতিটি কোণে কোণে ছড়িয়ে রয়েছে নানান ধরণের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত স্থান। তাই ভৌগলিক কারণে হলে ও  এদেশের প্রকৃতি তাই একেক সময় একেক রূপ ধারণ করে। এদেশের হরেক রকম আবহাওয়া, এদেশের প্রকৃতিতে ভিন্ন রূপ নিয়ে এসেছে।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সম্পর্কে আরও বেশি জানতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন : উইকিপিডিয়া বাংলা

ভিন্ন ভিন্ন রূপ ধারণ করলেও এদেশের প্রাকৃতিক দৃশ্য কখনো আপনাকে নিরাশ করবে না। এদেশের বিরাজমান প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের রূপে মুগ্ধ হয়ে প্রতিবছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে নানা ধরণের পর্যটকের আবির্ভাব ঘটে আমাদের এই দেশে।

কিন্তু আপনি জানেন কি? প্রকৃতি কখনো আপনাকে খালি হাতে ফিরিয়ে দেবে না। আপনার দৈনন্দিন জীবন যখন দমকল কর্মজীবনের বেড়াজালে পিষ্ট হবে, যখন জনজীবন বিপন্ন প্রায় হবে ঠিক তখন খানিকটা প্রাকৃতিক রূপের সান্নিধ্য আপনার সমস্ত ক্লান্তি,সমস্ত কষ্ট আপনাকে ভূলিয়ে দেবে। এদেশের বিস্তীর্ণ গ্রাম বাংলার সৌন্দর্য, পাহাড় পর্বতের সান্নিধ্য, এদেশের প্রাকৃতিক দৃশ্য মাঝে আপনাকে হারিয়ে যেতে বাধ্য করবে। প্রকৃতি এক নিমিষেই আপনাকে নতুন জীবন ফিরিয়ে দিয়ে আপনাকে শান্ত করে তুলবে। কারণ প্রকৃতি আমাদের বিনয়ী হতে শেখায়। প্রকৃতি আপনাকে নতুন করে শেখাবে। নতুন ভাবে বাঁচতে শিখাবে।

আমাদের এই দেশ প্রাকৃতিক দৃশ্যের মতনই সুন্দর। এদেশের যত উত্তরে যাওয়া যায়, ততো সমতল ভূমি। যত দক্ষিণে যাওয়া যায়, চারদিকে শুধু পানি। এমনি পুরো দেশটা মনে হয় রূপ কথার মতো সুন্দর। এই দেশে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সম্বলিত স্থানের অভাব নেই। চলুন জেনে আসি বাংলাদেশের কিছু প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের স্থানসমূহ সম্পর্কে- 

আইল্যান্ড, বাংলাদেশবাংলাদেশ প্রকৃতি সাজেক প্রকৃতি সাজেকনীলগিরি ক্লাউড ট্রি সোনারগাঁ ঢাকা প্রকৃতি বাংলাদেশ বাংলাদেশ প্রাকৃতিক দৃশ্য রুইন্স, সাতক্ষীরা, বাংলাদেশ কাপ্তাই - রাঙামাটি লিংক রোড, বাংলাদেশ বাংলাদেশ প্রকৃতি সাজেক

সাজেকের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য:

মেঘের পুঞ্জিঘেরা বাংলাদেশের অন্যতম একটি জনপ্রিয় স্থান হলো সাজেক। বাংলাদেশের চট্রগ্রাম বিভাগের অন্তর্গত রাঙ্গামাটি জেলার অন্তর্গত সাজেক ইউনিয়নে এই পর্যটন কেন্দ্রটির অবস্থান। বিগত বেশ কয়েক বছরে, সাজেক পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে আমাদের দেশের পর্যটকদের কাছে। বিস্তীর্ণ পাহাড়ের উপরে মেঘের ঢেউ খেলানো প্ৰাকৃতিক সৌন্দর্য সেখতে চাইলে আপনাকে ঘুরে আস্তে হবে মেঘের দেশ সাজেক থেকে।

বাংলাদেশ প্রকৃতি সাজেক প্রকৃতি সাজেক

সাজেক হতে পারে বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা যুক্ত করলে দেশের গন্ডি ছাড়িয়ে বিদেশী পর্যটকরাও ধীরে ধীরে ভ্রমণে আসবে  সাজেকে।

সেন্টমার্টিনের প্রাকৃতিক দৃশ্য:

সেন্টমার্টিন বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের নাম। সমুদ্রের নীল পানি আর আকাশের নীলিমার এক বিশাল মিলনমেলা উপভোগ করতে চাইলে আপনাকে যেতে হবে সেন্টমার্টিনে।

সেন্ট মার্টিন বাংলাদেশের

বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিনে অবস্থিত এই প্রবল দ্বীপ চট্রগ্রাম বিভাগের কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলায় অবস্থিত। বর্তমানে শুধুমাত্র দেশি পর্যটকে, মুখরিত হয়ে থাকে এ অঞ্চল। যদি পর্যটন বিভাগের সুদৃষ্টি পরে তাহলে বেশ অল্প কিছুদিনের মধ্যেই এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আধার দ্বিপটি বিদেশী পর্যটকে মুখরিত হবে।

বান্দরবানের প্রাকৃতিক দৃশ্য:

বিস্তীর্ণ পাহাড়ে এবং বিশাল বিশাল জলপ্রপাতে মুখরিত অন্যতম একটি অংশ হলো বান্দরবান। বাংলাদেশের চট্রগ্রাম বিভাগে অবস্থিত এই জেলায় রয়েছে অসাধারণ সব পর্যটন কেন্দ্র ,যা আপনাকে বার বার মুখরিত করবে। বর্তমানে সঠিক প্রচারণার অভাবে শুধুমাত্র দেশি পর্যটকদের অন্যতম ভ্রমণ কেন্দ্র হলো এই স্থানটি। যারা ট্র্যাকিং, অভিযান, রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা পছন্দ করে তাদের জন্য অন্যতম একটি ভ্রমণ কেন্দ্র হলো বান্দরবান।

যদি সরকারের সুদৃষ্টি পড়ে তাহলে পর্যটন খাতে এক অঞ্চল হয়ে উঠতে পারে বাংলাদেশের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র।

সিলেটের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য

বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় একটি ভ্রমণ কেন্দ্র হলো সিলেট। সারি সারি চা বাগানের অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অবলোকন করতে চাইলে ভ্রমণে যেতে পারেন সিলেটে।

একই সাথে চা বাগান, জলরাশি, ঝড়নার মিলনমেলার সৌন্দর্য বাদ দিতে না চাইলে ঘুরে আসতে পারেন সিলেট থেকে। সিলেটের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত বিধায় এর ভ্রমণ কেন্দ্রগুলোতে দেশি বিদেশি পর্যটকদের মিলনমেলা বসে।

কক্সবাজারের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। 

কক্সবাজার বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় একটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের নাম। বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম এই সমুদ্র সৈকতটি চট্রগ্রাম বিভাগের  কক্সবাজার জেলায় অন্তর্গত। প্রতিবছর এই দেশের গন্ডি ছাড়িয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পর্যটক এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মুগ্ধ হতে আমাদের এই দেশে ভ্রমনে চলে আসে।

অপরূপ সৌন্দর্যের আধার এই স্থানে সাগর ছাড়াও রয়েছে পাহাড়ে ঘেরা বিস্তীর্ণ জনপদ, রয়েছে ঝর্ণার বিশাল জলধারা, রয়েছে ঝাউবন রয়েছে বিভিন্ন সামুদ্রিক মাছের সাথে পরিচিত হবার সুযোগ। পাশাপাশি বর্তমানে পর্যটকদের  জন্য সার্ফিং, প্যারাসাইক্লিং সহ নানা ধরণের কর্মকান্ডের সুযোগ করে দিয়েছে পর্যটন কতৃপক্ষ। যার মাধ্যমে দেশি-বিদেশিদের এই যাত্রায় এক ভিন মাত্রা যুক্ত হবে। 

বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের অন্যতম একটি পর্যটন খাত হিসেবে ব্যবহৃত এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা স্থান । অদূর ভবিষ্যতে এটি হয়ে উঠবে দেশের অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার হিসেবে। 

সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য

বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় একটি ম্যানগ্রোভ বন হলো আমাদের এই সুন্দরবন। অপরুপ সৌন্দর্যের আধার এই বনটি নানা ধরনের দেশি বিদেশি গাছে পরিপূর্ণ থাকে।

এই বনের প্রধান আকর্ষণ রয়েল বেঙ্গল টাইগারকে একবার দেখতে ছুটে আসে অনেক পর্যটক। পরিপূর্ণ রক্ষণাবেক্ষণ এর অভাবে পর্যটকরা ধীরে ধীরে যাতায়াত কমিয়ে দিয়েছে এই স্থানে। আশা করি উপরের মহলের সকলের দৃষ্টি পড়বে এই ম্যানগ্রোভ বনের দিকে।এই বন রক্ষার্থে এগিয়ে আসবে।

সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য নিয়ে কথা

আমাদের দেশ, এমন একটি দেশ, যে দেশ সৌন্দর্যের রানী হিসেবে খ্যাত। ষড়ঋতুর এই দেশে প্রকৃতি এক এক সময়, এক এক রূপ, ধারণ করে। গ্রীষ্মের প্রখর রোধে যখন জনজীবন বিপন্ন থাকে, তখন আগমন ঘটে বর্ষার। বর্ষার প্রখর বৃষ্টিতে যখন যনজীবন বিপন্ন প্রায় তখন হীম শীতলতা নিয়ে প্রকৃতিতে আগমণ ঘটে শীতের। প্রকৃতির অপরূপ মায়া সাজিয়ে রেখেছে আমাদের এই দেশটিকে। এইদেশ এর বিচিত্রে প্রকৃতি একেক সময় একেক অবয়ব নিয়ে আসে হাজির হয় আমাদের এই দেশে।

বেশ বহুকাল আগে বিদেশী পর্যটকরা, কবি-ব্যবসায়ীরা  আমাদের দেশে বেড়াতে আসতো। তখন তারাই এই দেশের রূপ নিয়ে নানা ধরণের কল্প কাহিনী রচনা করতো। কিন্তু সময়ের সাথে এখন তরুণ প্রজন্মের মাঝে অজানাকে জানার, অদেখাকে দেখার ইচ্ছা কাজ করে প্রবলভাবে। এখন এদেশের মানুষ ভ্রমণ পিয়াসী হয়েছে। তারই কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে এদেশে পর্যটন শিল্পে ব্যাপক উন্নতি হয়েছে।

এই দেশের সৌন্দর্যের সান্নিধ্যে ছুটতে থাকা মানুষ ঘর থেকে বের হয়েছে। তারা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য  দেখতে চায়, দেখতে চায় অপরূপ সৌন্দর্যে  জানানো আমাদের এই জন্মভূমিকে। বাংলার প্ৰাকৃতিক সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে কতশত কবি সাহিত্যিক যে নানা ধরণের গীতিগান রচনা করে গেছেন তার হিসেবে নেই। তাইতো গীতিকার দ্বিজেন্দ্রলাল এর ভাষায় বলতে হয় –

“ধনধান্যে পুষ্পে ভরা আমাদেরই বসুন্ধরা
তাহার মাঝে আছে এই দেশ, সকল দেশের সেরা
ও সেই স্বপ্ন দিয়ে তৈরি সে দেশ ,স্বৃতি দিয়ে ঘেরা
এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি ,সকল দেশের রানী সেজে আমার জন্মভূমি।”

উপসংহার: অসাধারণ রুপে ঘেরা এই দেশটি আমাদের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অন্যতম একটি স্থান। সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে আমাদের এই দেশটি তার রূপ সৌন্দর্য হারাতে বসেছে।জলবায়ুর প্রভাবে এই দেশের পরিবেশ বিপন্ন প্রায়। তাই আমাদের সুযোগ এসেছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রক্ষার্থে নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসা। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রক্ষার্থে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.