vlxxviet mms desi xnxx

গোসলের ফরজ কয়টি?

0

গোসলের ফরজ কয়টি? | কখন গোসল করা সুন্নত

প্রত্যেক ঈমানদারগণ সবসময় নিজেদেরকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে রাখেন। গুগলের মাধ্যমে সম্পূর্ণ অঙ্গ পরিষ্কার করে এবং ওযু করার মাধ্যমে নিজেকে পবিত্র রাখেন। আপনারা যারা গোসলের ফরজ কয়টি জানার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে এসেছেন তাদেরকে স্বাগত জানাচ্ছি। আমরা আপনাদের অজানাকে জানাতে সাহায্য করবো। যাতে করে আপনারা জেনে সঠিক নিয়মটি পালন করেন এবং সেই সাথে নিজেদেরকে পরিশুদ্ধ করার জন্য সঠিক পথ অনুসরণ করতে পারেন।

রাসুল (সাঃ) পবিত্রতা অর্জন করার জন্য গোসলের তাগিদ দিয়েছেন। আর গোসল সম্পর্কে বলেছেন গোসলের ফরজ এবং সুন্নত কয়টি। মুমিনগণ ব্যক্তিরা এ সকল নিয়ম একনিষ্ঠ ভাবে পালন করে থাকেন। কারণ তারা জানেন যে পবিত্রতা ঈমানের অঙ্গ। তাই ইবাদাত করার পূর্বে অবশ্যই পবিত্রতা অর্জন করতে হবে সেইসাথে সব সময় আমাদের পবিত্র ভাবে থাকতে হবে। যেকোনো সময় মৃত্যু হতে পারে আর সেই মৃত্যুর সময় যাতে করে আমরা পবিত্রতার সাথে মৃত্যুবরণ করতে পারি। তাহলে এবার চলুন গোসলের ফরজ কয়টি জেনে নিই।

আরো দেখুনঃ গোসল ফরজ হওয়ার কারণ।

গোসলের ফরজ কয়টি?

গোসলের ফরজ তিনটি। যথাঃ

  • কুলি করা ( গরগরা সহ)। (সহি বুখারী, হাদিস নংঃ ২৫৭ এবং ২৬৫; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস নংঃ ৫৬৬)।
  • নাকের ভিতরে পানি দেওয়া। (সহি বুখারী, হাদিস নংঃ ২৬৫; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস নংঃ ৫৬৬)।
  • সম্পূর্ণ শরীর পানি দিয়ে ধৌত করা। (সুনানে আবু দাউদ, হাদিসঃ ২১৭)।

গোসলের সুন্নত কয়টি?

গোসল করার সময় যেমন ফরজ তিনটি কাজ অবশ্যই করতে হয় ঠিক তেমনি সুন্নত পালন করে গোসল করা উত্তম। তাই গোসলের সুন্নত হচ্ছে ৬টি। সেগুলো হচ্ছে-

  • গোসল শুরু করার আগে বিসমিল্লাহ পাঠ করে গোসল শুরু করতে হবে।
  • পবিত্র অর্জনের জন্য নিয়ত করা। এক্ষেত্রে আপনারা গোসলের দোয়া পড়তে পারেন। গোসলের দোয়া পড়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন সেখানে যেন টয়লেট না থাকে। বিসমিল্লা যখন পারবেন তখন টয়লেট কাছে থাকলে বিসমিল্লা মনে মনে বলবেন। (অর্থাৎ গোসলখানা এবং টয়লেট একসাথে হলে কোন রকম দোয়া উচ্চারণ করা যাবে না)।
  • দুই হাতের কব্জি তিন বার ধুয়ে নিতে হবে। ওযু করার সময় যেভাবে আমরা কব্জি দুই ঠিক সেভাবে।
  • কাপড় অথবা সমস্ত শরীর কোথাও অপবিত্রতা থাকলে সে স্থান গোসলের পূর্বে পরিষ্কার করে নিতে হবে।
  • গোসলের পূর্বে অজু করে নেওয়া। যদিও গোসলের স্থান নিচু হয় এবং পানি জমা হয়ে থাকার আশংকা থাকে তাহলে এখনো পর্যন্ত দুই পা পরিষ্কার করতে হবে।
  • প্রথমে ডান দিকে তিন বার এরপর বাম দিকে তিন বার এবং মাথার ওপরে তিনবার পানি দিতে হবে।

আরো দেখুনঃ ওযুর ফরজ কয়টি ও কি কি?

কখন গোসল করা ফরজ

আমরা গোসলের ফরজ সম্পর্কে জেনেছি। কিন্তু কী কারণে আমাদের জন্য গোসল করা ফরজ হয়ে যায় সেগুলো অবশ্যই আমাদের জেনে নিতে হবে। আর সেগুলো হচ্ছে-

  • নারীদের ঋতুস্রাব অথবা মাসিকের শেষ হওয়ার পর গোসল করা ফরজ। 
  • সন্তান প্রসবের পর যখন রক্তপাত বন্ধ হয়ে যায় তখন গোসল করা ফরজ।
  • মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেওয়া জীবিতদের জন্য ফরয কাজ।
  • কোন অমুসলিম যদি ইসলাম গ্রহণ করে তাহলে অবশ্যই ফরজ গোসল করে নিতে হবে।
  • স্বামী স্ত্রী সহবাস করলে অথবা স্বপ্নদোষ হলে গোসল করা ফরজ।

কখন গোসল করা সুন্নত

যে যে কারণে গোসল করা সুন্নত হয়ে যায় সে কারণগুলো হচ্ছে-

  • জুম্মার নামাজের আগে গোসল করা সুন্নাত।
  • ইহরামের জন্য গোসল করা সুন্নাত।
  • ঈদুল ফিতর এবং ঈদুল আযহা নামাজের পূর্বে গোসল করা সুন্নাত।
  • হাজীরা আরাফায়  যখন অবস্থান করবেন তখন গোসল করা সুন্নত।

আরো দেখুনঃ আযানের জবাব দেওয়ার নিয়ম।

উপসংহারঃ আশা করছি আপনারা যারা গোসলের ফরজ কয়টি জানতে চেয়েছেন তারা আমাদের ওয়েবসাইট থেকে জানতে পেরেছেন। এর পাশাপাশি আমরা আপনাদেরকে কখন গোসল করলে ফরজ এবং সুন্নতগুলো জানানোর চেষ্টা করেছি। আপনারা যদি আমাদের পক্ষ হতে গোসলের সম্পর্কে আরও তথ্য জানতে চান তাহলে কমেন্ট এর মাধ্যমে জানাতে পারেন। সকল মুমিন ব্যক্তিদেরকে পবিত্রতা অর্জনের জন্য মহান আল্লাহতালা গোসলের মাধ্যমে পবিত্রতা অর্জন করতে বলেছেন এবং ইবাদাতের পূর্বে অবশ্যই ওযু করার আদেশ দিয়েছেন। জাযাকাল্লাহ খাইরান।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex