vlxxviet mms desi xnxx

বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম

0

জনপ্রিয় বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম

আসসালামু আলাইকুম আপনাদের মাঝে অনেকেই বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চেয়েছিল। আমরা আজ এই লেখাটির মাধ্যমে আপনাদের বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম এবং কেন বিটকয়েন একাউন্ড খুলবো ইত্যাদি সব কিছু জানাবো তাই আমাদের লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়বেন আশা করি আপনার উপকার হবে। 

বিটকয়েন কি? | What is Bitcoin?

বিটকয়েন একাউন্ট খোলার আগে জানতে হবে বিটকয়েন আসলেই কি। চলুন তাহলে জানা যাক বিটকয়েন কি? প্রাথমিক ভাবে বলতে গেলে বিটকয়েন একটি মুদ্রার নাম। এটা এমন একটি মুদ্রা যা কেবল মাএ ডিজিটাল উপায়েই ব্যবহার করতে পারবেন। অনন্যা মুদ্রা: যেমন টাকা, রুপি, ডলার ঠিক তেমনি বিটকয়েনও একটি মুদ্রা।  

টাকা, রুপি ও ডলার হাত দিয়ে ধরে অনুভব করা যায় ইচ্ছা মতো খরচ করা যায় কিন্তু বিটকয়েন মুদ্রা গুলোকে আপনি হাত দিয়ে ধরে অনুভব করতে পারবেন না তাই এই বিটকয়েনকে digital currency বলে।  অনেকেই আবার ইলেকট্রনিক মুদ্রাও বলে থাকে এই বিটকয়েনকে। 

bitcoin একটা মজার ব্যাপার হচ্ছে এর কোনো মালিক নেই। অনেকেই হয়তো অভাগ হতে পারেন এটা কেমন করে সম্ভব একটা ছোটো উদাহরণ দিলে বুঝতে পারবেন, ইন্টারনেট যেমন কোনো মালিক নেই কিন্তু সবাই সুবিধা নিচ্ছে। তেমনি বিটকয়েনের সুবিধাও চাইলে সবাই নিতে পারবে। কিন্তু তার জন্য একটা বিটকয়েন একাউন্ট প্রয়োজন।

বিটকয়েন একাউন্ট খোলার আগে আমাদের আরও জানতে হবে এই বিটকয়েন একাউন্ট খোলার সুবিধা কি কেন আমরা এই একাউন্ট খুলবো বা বিটকয়েন থেকে কীভাবে উপার্জন করবো। ১ বিটকয়েন সমান কতো টাকা। তাহলে চলুন এবার জানা যাক ১ সমান কত টাকা।

এক বিটকয়েন সমান কত টাকা?

আপনি কি জানে ১ বিটকয়েন সমান কত টাকা জানলে হয়তো অবাক হয়ে যাবেন। সম্প্রতি সময়ে বিটকয়েনের মূল্য আকাশ ছোয়া। যা আপনার কল্পনার বাহিরে। ধারনা করা হচ্ছে যে ২০৫০ সালের দিকে গিয়ে এর মূল্য দ্বীগুন হয়ে যাবে। 

২০০৯ সালের ১ ডলার ১৩০৯ বিটকয়েন কিনা যেতো আর তখনকার সময়ে ১ ডলার সমান ছিলো ৬৭.৪ টাকা তো আশা করি বুঝতে পারছেন ২০০৮ সালের দিকেও বিটকয়েনের দাম ছিলো অনেক কম। ২০০৯ থেকে ২০২১ মাএ ১২ বছরের ব্যবধানে আজ ১ বিটকয়েন সমান ৪০,০০০ মার্কিন ডলার।

বাংলাদেশের টাকাই প্রায় ৩৬ লক্ষ টাকা দিন দিন এর মূল্য বেড়েই চলেছে। ২০০৯ সালে যেই ১ বিটকয়েন সমান ছিলো ৫ পয়সার কিছু বেশি সেই ১ বিটটকয়েন সমানই আজ লক্ষ লক্ষ টাকা তাহলে একবার গভীর ভাবে ভাবেন তো তখন যারা বিটকয়েন কিনতে তারা আজ কত কোটি টাকার মালিক আপনার কল্পনাতেও আসবে না। 

বিটকয়েনের মূল্য সবসময় এক থাকে না এর মূল্য উঠানামা করে। বর্তমান সময়ে সারা পৃথিবীতে বিটকয়েন অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তাহলে চলুন এবার জানা যাক বিটকয়েন একাউন্ট খোলবেন কেমন করে বা বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম কি? 

বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম | Create Coinbase Account

আপনাদের হয়তো মনে হতে পারে বিটকয়েন একাউন্ট কেমন করে খুলবে বা মনে হতে পারে একাউন্ট খোলা অনেক ঝামেলা? না বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম অনেক সহজ কোনো প্রকার সমস্যা ছাড়াই আপনি চাইলে এই একাউন্টটি খুলতে পারেন। তবে হ্যাঁ বিটকয়েন একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে প্রথমে একটি coinbase account খুলতে হবে।  কেনন বিটকয়েনের wellet আদান প্রদান করে Coinbase Account  থেকে।

Coinbase Account এ বিটকয়েন শুধু বিটকয়েন নয় আপনি চাইলে অনেক Online Wallet USE করতে পারেন। চলুন তাহলে আমরক জেনে নেই Coinbase Account কীভাবে খুলবেন।

  • Coinbase একাউন্ট খোলার জন্য প্রথমে আপনাকে coinbase.com এই ওয়েবসাইট যেতে হবে।
  • Coinbase website এ গেলে আপনি দেখতে পারবেন Get started নামে একটি অপশন, ঐই get started option এ ক্লিক করবেন।

১ বিটকয়েন সমান কত টাকা

  • তারপর দেখতে পারবেন একটি র্ফম আসবে সেখানে আপনার fast name last name email address password দিতে হবে।

বিটকয়েন কি বাংলাদেশে বৈধ

  • I certify that i am 18 years of ages এই অপশনে ক্লিক করে ধারাবাহিক আপনার কাজগুলো করতে হবে।
  • তারপর আপনাকে Email address verify করতে হবে। করার সাথে সাথেই আপনার email এ একটি ভেরিফাই  যাবে Coinbase থেকে। এবং আপনাকে ইমেইল এ ভেরিফাই করতে হবে। তারপর আপনার সামনে পেজ চলে আসবে সেখানে আপনার ফোন নাম্বার দিতে হবে।
  • আপনার মোবাইল ফোনে মেসেজে একটি code যাবে ঐকোর্ডটি submit অপশনে গিয়ে submit করে দেন।

Congresstion আপনার কয়েনবেস বা বিটকয়েন একাউন্ট খোলা সম্পর্ন হয়েছে। এবার আপনি আপনার বিটকয়েন একাউন্ট এর হোম পেজ এ জান এবং আপনার প্রোফাইলে সকল তথ্য দিন। এভাবে আপনি খুব সহজেই বিটকয়েন একাউন্ট খুলতে পারেন। আশা কোনো সমস্যা হবে না।

বিটকয়েন কি বাংলাদেশে বৈধ?

অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে বিটকয়েন কি বাংলাদেশের জন্য বৈধ? অতি দুঃখ জনক হলেও সত্যি বাংলাদেশ ব্যাংক ২০১৪ সালে বিটকয়েনকে সর্ম্পন রুপে অবৈধ হিসেবে ঘোষনা করে বাংলাদেশে। যদিও আমাদের বাংলাদেশে বিটকয়েন বেচাকেনা নিতান্তই কম তবুও বাংলাদেশে আইন অনুযায়ী বিটকয়েন সংরক্ষণ ও কেনাবেচা একদম নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ২০১৭ সালেও বিটকয়েনর লেনদেন সম্পর্কে সর্তক জানিয়ে একটি বিজ্ঞপি প্রকাশ করেছেন।

বিবিসি বাংলাকে বাংলাদেশের ব্যাংকের পরিচালক  সিরাজুল ইসলাম বলেছেন বিটকয়েনের কোনো অনুমোদন বাংলাদেশে দেওয়া হয়নি কারন ভার্চুয়াল মুদ্রা অথাৎ বিটকয়েন  লেনদেনের দ্বারা মানি লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসে অর্থায়ন সম্পর্কিত আইনের লঙ্ঘন হতে পারে বলে এর ফলে দেশ ক্ষতিগ্রস্থ সম্মুখীন হতে পারে। যেহেতু বাংলাদেশে এর কোনো অনুমোদন নেই তাই জাতীয় ভাবে এটি বৈধ নয়।

বাংলাদেশ ব্যাংক আরও জানিয়েছেন এই  ধরনের অবৈধ লেনদেনের মাধ্যমে আর্থিক এবং আইনগত ঝুঁকি রয়েছে। এবং আরও বলেছেন যদি আমাদের কাছে এ ধরনের লেনদেনের নোটিশ আসে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া  হবে। 

অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে বাংলাদেশ ব্যাংক ভবিষ্যতে বিটকয়েনের ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেবে কিনা, সেই প্রশ্নের জবাবে ব্যাংকের পরিচালক বলেছেন, এখনো বাংলাদেশ ব্যাংক বিটকয়েন লেনদেনের ব্যাপারে কোন পরিকল্পনা করেননি তবে অতি এ বিষয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ করবেন।

বিটকয়েন থেকে বিকাশ

আামাদের মাঝে অনেকেই আছে যারা বিটকয়েন জমিয়েছে কিন্তু বুঝতে পারছে না বিটকয়েন থেকে কীভাবে বিকাশে কনভার্ট করবে। খুব সহজেই আপনি চাইলে বিটকয়েন থেকে বিকাশে টাকা নিতে পারেন কিন্তু এই বিষয়ে আপনাকে একটু সর্তক থাকতে হবে নয়তো আপনার সকল প্রকার কষ্ট বিফলে যাবে। পৃথীবিতে দিন দিন ভার্চুয়াল কারেন্সি বা বিটকয়েন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

তবে বিটকয়েনকে কনভার্ট করে বিকাশে টাকা নেওয়ার জন্য বাংলাদেশি  ডলার বাই-সেল ওয়েবসাইট রয়েছে অনেকগুলো। যে ওয়েবসাইটগুলো মাঝ্যমে আপনি চাইলে ক্রিপ্টোকারেন্সি পেমেন্ট করে বিকাশে টাকা নিতে পারবেন। তবে সব ওয়েবসাইট গুলো থেকে আপনি ১০০% পেমেন্ট পাবেন না কারন এক্ষেত্রে বেশিরভাগ ওয়েবসাইট ফেইক বা স্ক্যাম হয়ে থাকে। 

আপনি একটি কাজ করতে পারেন যার মাধ্যমে আপনি ১০০% পেমেন্ট পেতে পারেন কাজটি হচ্ছে। যদি আপনার কাছে 100 ডলার থাকে, তাহলে সেখান থেকে 10/20 ডলার করে বিক্রি করে যদি ভালো পেমেন্ট পান এবং আপনার বিশস্ত মনে হয় তাহলে আপনার বিটকয়েনগুলো সেল করে বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারেন।

তবে আমার জানা Pay2change.com অনেক ভালো পেমেন্ট দিয়ে আসছে। Pay2change.com ওয়েবসাইটটিকে বলার কারণ হচ্ছে- এটির অসংখ্য পজিটিভ রিভিউ রয়েছে এবং ডলার রেটও অন্যান্যদের তুলনায় অনেক ভালো দিয়ে থাকে। তাই আপনি চাইলে এখান থেকে বিটকয়েন সেল করে বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারেন। আশা করি ইতিমধ্যেই আপনি বুঝতে পারছেন বিটকয়েন থেকে কীভাবে বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

বিটকয়েন থেকে বিকাশ

বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম ও কীভাবে বিকাশে পেমেন্ট নিবেন এইসব নিয়ে  যদি আপনাদের আরও কিছু জানার  বা কোনো প্রশ্ন থাকে তাহলে আমাদের কমেন্ট জানাবেন আমরা পরবর্তীতে উওর দেওয়ার চেষ্টা করবো।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex