vlxxviet mms desi xnxx

অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে

0

আপনি কি একজন  বিশ্ববিদ্যালয় আবেদন প্রত্যাশি শিক্ষার্থী? অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে জানতে চান?

শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার। একটি শিক্ষিত জাতিই পারে একটি দেশের ভাগ্য বদল করে দিতে। শিক্ষা মানুষের মেধা উন্নয়নের পাশাপাশি মানুষকে সামনের দিকে পরিচালনা করার ক্ষেত্রে অনুপ্রেরণা যোগায়। যা তাকে ভবিষ্যতে নিজেকে পরিচালনা করার ক্ষেত্রে এবং সেই সাথে দেশের উন্নয়নে ভূমিকা পালন করতে অনুপ্রেরণা যোগায়। কারণ একটি শিক্ষিত জাতিই পারে একটি দেশকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে সঠিকভাবে পরিচালনা করতে। অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে জানতে হলে সাথেই থাকুন।

সময়ের সাথে সাথে মানুষের শিক্ষা ক্ষেত্রে বেশ পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। বর্তমানে মানুষ শিক্ষাকে ভাগ্য বদলের প্রদান কারিগর হিসেবে বিবেচনা করে থাকে। আগের তুলনায় তাই মানুষ শিক্ষা গ্রহণ নিয়ে সচেতন হয়েছে। স্কুল কলেজের গন্ডি পেরিয়ে বিশবিদ্যালয় জীবনে শিক্ষা গ্রহণে নিজেকে উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত করার এক ধরণের প্রবণতা দেখা দিয়েছে। ফলে এর জন্য সমস্ত ত্যাগ, তীতীক্ষা এবং সাধনা করে তারা তাদের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে পদার্পন করে থাকে। অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে জানতে হলে সাথেই থাকুন।

অনার্স এর বাংলা অর্থ কি?

একজন ব্যক্তির শিক্ষা জীবন শুরু হয় স্কুলের মাধ্যমে। ধীরে ধীরে সময় কাটে স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে কলেজে উঠে আসে। কলেজের গন্ডি পেরিয়ে শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্য পদার্পন করতে হয় বিশ্ববিদ্যালয়ে।

কিন্তু আপনি কি জানেন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নের জন্য প্রয়োজন হয়ে থাকে স্কুল কলেক এর অর্জিত ফলাফল। স্কুল কলেজের ফলাফলের উপর বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনের ভর্তি পরীক্ষার জন্য অংশগ্রহণের ব্যাপারটা অনেকাংশে নির্ভরশীল। প্রায় স্কুলে থাকাকালীন সময়ে সকলেই সকলের জীবনের কর্মপরিকল্পনা অনেকাংশে নির্ভরশীল করে থাকে। তাই যে যেখানে প্ল্যান করে থাকে সেখানেই ভর্তি হয়ে থাকে। মূলত প্রত্যেকের ক্যারিয়ার প্ল্যানের উপর নির্ভর করে তার বিশ্ববিদ্যালয় জীবন কোথায় ভর্তি হবে নির্ভর করে থাকে।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে যে কথাটা সবচেয়ে বেশি শোনা যায় তার নাম হল অনার্স। অনার্স মূলত একটি ইংরেজি শব্দ। বাংলায় এর অর্থ দাঁড়ায় স্নাতক। মূলত একজন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্পনের পরে ৪ বছর অধ্যয়ন করে যে ডিগ্রি অর্জন করা হয় তাকে ইংরেজিতে অনার্স বাংলায় স্নাতক বলা হয়। তাই অনার্স এর বাংলা অর্থ হল স্নাতক। অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে জানতে হলে চোখ রাখুন আজকের আর্টিকেলের মধ্যে।

অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে

উচ্চশিক্ষা গ্রহণের স্বপ্নে প্রতি বছর শিক্ষার্থীরা কলেজের গন্ডি পেরিয়ে পদার্পন করে থাকে বিশ্ববিদ্যালয়ে। কোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের জন্য অবশ্যই এসএসসি এবং এইচএসসি এর পয়েন্ট কাউন্ড করা হয়ে থাকে। দুটি পরীক্ষার সমন্বিত ফলাফলের উপর ভিত্তি করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি নির্ভর করে থাকে।

আরো দেখুনঃ জিপিএ, সিজিপিএ গ্রেডিং পদ্ধতি.

মূলত আপনি যদি পরিকল্পনা করে থাকেন যে আপনি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স লেভেলে ভর্তি হবেন সেক্ষেত্রে আপনার জেনে রাখা প্রয়োজন যে অনার্স ভর্তি হতে ঠিক কত পয়েন্ট আপনার প্রয়োজন হবে। 

সবার আগে আসি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে-

আপনি যদি কোন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনার্স পড়তে চান সেক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজন হবে মোট ৭ পয়েন্ট। এসএসসি এবং এইচএসসি এর পয়েন্ট হিসেব করে আপনি ভর্তি পরীক্ষার জন্য ফর্ম তোলার ক্ষেত্রে যোগ্যতা রাখবেন। 

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে:

আপনি যদি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনার্স শেষ করতে চান তাহলে আপনাকে সেক্ষেত্রে এসেসিস এবং এইচএসসি মিশিয়ে ৮ পয়েন্ট প্রযোজ্য হবে ,তবে এক্ষেত্রে কম পয়েন্ট নিয়েও আপনি ভর্তি হতে পারবেন। তবে শেখতেরে আপনি আপনার পছন্দের বিষয় নাও পেতে পারেন। তবে আপনাকে অবশ্যই ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে:

আপনি যদি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধীনে অনার্স ভর্তি হতে চান তাহলে আপনি সেক্ষেত্রে অবশ্যই এসএসিতে ২.৫ এবং ইন্টারে ২.৫ পয়েন্ট আপনাকে পেতে হবে। অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগে জানতে হলে চোখ রাখুন।

ঢাকা কলেজে অনার্স ভর্তি যোগ্যতা 

অনার্স ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের প্রথম পছন্দ থেকে থাকে সরকারি কলেজসমূহ। কিন্ত কোন কারণে যখন কোন শিক্ষার্থী সরকারি কলেজে ভর্তি হতে পারেনা সেক্ষেত্রে তাদের প্রধান পছন্দ হল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৭ টি কলেজকে তাদের অধিভুক্ত করে নিয়েছে।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ৭ কলেজের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় একটি কলেজ হল ঢাকা কলেজ। ইতিহাস ,গৌরব ,ফলাফলের দিক থেকে বেশ এগিয়ে রয়েছে এই কলেজটি। তাই এই কলেজে পড়াশোনা করার আগ্রহ থেকে থাকে অনেক শিক্ষার্থীদের।যদি কোন শিক্ষার্থী ঢাকা কলেজে অনার্সে ভর্তি হতে চায় তাহলে সেই শিক্ষার্থীকে অবশ্যই আগে থেকে বিশেষ প্রস্তুতি নিতে হবে।

ঢাকা কলেজে মোট তিনটি অনুষদের অধীনে অনার্স ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। অনুষদগুলো হল –

  • বিজ্ঞান।
  • বাণিজ্য।
  • কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান।

ঢাকা কলেজের অধীনে কোন শিক্ষার্থী যদি বিজ্ঞান অনুষদে ভর্তি হতে চায় তাহলে তার পয়েন্ট লাগবে এইচএসসি এবং এসএসসি এর রেজাল্ট মিলিয়ে সর্বোচ্চ ৭ পয়েন্ট। যা এসএসসি এবং এইচএসসি রেজাল্ট কাউন্ট করে হিসেব করা হয়।উক্ত পয়েন্ট হলে আবেদন করতে পারবে শিক্ষার্থীগণ।

কোন শিক্ষাথী যদি ঢাকা কলেজের অধীনে বাণিজ্য অনুষদের অধীনে ভর্তি হতে চায় তাহলে তার সর্বোচ্চ পয়েন্ট লাগবে ৬.৫০ পয়েন্ট। উক্ত পয়েন্ট হলে আবেদন করতে পারবে শিক্ষার্থী।

কোন শিক্ষার্থী যদি ঢাকা কলেজের অধীনে অনার্স ভর্তি হতে চায় তাহলে তার সেক্ষেত্রে পয়েন্ট প্রয়োজন হবে ৬.০০ পয়েন্ট। উক্ত পয়েন্ট হলে শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে এই কলেজ এ অনার্স অধ্যায়নের ক্ষেত্রে।

মুলত এত পয়েন্ট পেলে আবেদনের জন্য ফর্ম তুলতে পারবে। মূলত ঢাকা কলেজে অনার্স এ অধ্যায়নের জন্য শিক্ষার্থীদেরকে প্রথমে পরীক্ষার অংশগ্রহণ করতে হবে।পরীক্ষায় প্রাপ্ত নাম্বারের ভিত্তিকে শিক্ষার্থীকে তারা কোন বিষয়ে পড়তে পারবে তা জানানো হবে।উক্ত ফলাফলের ভিত্তিতেই কোন শিক্ষার্থী ঢাকা কলেজে অনার্সে ভর্তি হতে পারবে এবং পড়াশোনা করতে পারবে। অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে জানতে হলে সাথেই থাকুন।

অনার্স গ্রেডিং পদ্ধতি

প্রত্যকটি ক্ষেত্রে ফলাফল খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ফলাফলের উপর অনেকাংশে নির্ভর করে। কিন্তু তা যদি হয় অনার্স এর গ্রেডিং পদ্ধতি তাহলে কথাই নেই। আপনি যদি জানতে চান অনার্স গ্রেডিং পদ্ধতি নিয়ে চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক অনার্স গ্রেডিং পদ্ধতি সম্পর্কে:

অনার্সের ক্ষেত্রে গ্রেডিং পদ্ধতি সিজিপিএ আকারে নির্ধারণ করে থাকে। তাই কোন শিক্ষার্থী যদি তার ফলাফল বের করতে চায় তাহলে তা সিজিপিএ আকারে নির্ধারিত থাকবে।

যেমন কোন শিক্ষার্থী যদি সিজিপিএ ৩ থেকে ৪ এর মধ্যে হয়ে থাকে তাহলে সে প্রথম শ্রেণী পাবে। কোন শিক্ষার্থীর সিজিপিএ যদি ২.২৫ পয়েন্ট  থেকে ২.৯৯ পয়েন্ট হয়ে থাকে তাহলে সে দ্বিতীয় শ্রেণী অর্জন করতে পারবে। কোন শিক্ষার্থী যদি সিজিপিউএ ২.০০ থেকে ২.২৪ হয়ে থাকে তাহলে সে তৃর্তীয় শ্রেণী অর্জন করবে। মূলত এভাবেই অনার্সের গ্রেডিং পদ্ধতি নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। উক্ত গ্রেডিংয়ের উপর তাদের ভবিষ্যতের জীবন অনেকাংশে নির্ধারণ কতা হয়ে থাকে। তাই শিক্ষার্থীদের উচিত ভালো ফলাফল অর্জনের দিকে আলোকপাত করা। সেই সাথে ভালো ফলাফল অর্জন এর জন্য কাজ করে যাওয়া। অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে জানতে হলে সাথেই থাকুন।

উপসংহারঃ অনার্স জীবনের ফলাফল পরবর্তীতে বেশ কাজে দিয়ে থাকে। তাই ভবিষ্যত জীবন সুন্দর এবং কর্মচঞ্চল করতে চাইলে আপনাকে আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে।আশা করি আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনারা অনার্স ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগে সে সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন যা আপনার পরবর্তীতে কাজে লাগানোর ক্ষেত্রে বেশ সাহায্য করবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex