vlxxviet mms desi xnxx

ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো – ২০২১

0

ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো – ২০২১

ফ্রিল্যান্সিং শব্দটি আমরা এখন প্রায় শুনে থাকি। কিন্তু এই ফ্রিল্যান্সিং আসলে কি সেটা আমরা অনেকেই জানি না। এক কথায় ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে একটি মুক্ত ও স্বাধীন পেশা। আপনার যদি ঘরে বসে ইন্টারনেট থেকে অর্থ উপার্জন করতে চান তাহলে আপনার ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জানতে হবে? ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবেন? কিভাবে কাজ করবেন? এগুলো সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে।

আরো পড়ুন: অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়

আমরা যারা চাকরিজীবী তারা সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা অবধি প্রতিদিন কাজ করি। আর আমাদের এই কাজ প্রত্যেকদিন একই সময়ে করতে হয়। এভাবে প্রতিদিন কাজ করার ফলে আমাদের মধ্যে একঘেয়েমি চলে আসে। আমরা যারা স্বাধীন চিন্তাধারার মানুষ তারা এই একঘেয়েমি থেকে বের হতে চাই।  তাই আমরা অন্য কোন পেশার খোঁজ করি। আমাদের স্বাধীন চিন্তাধারার মানুষদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি পেশা। যেখানে আমরা আমাদের নিজেদের একঘেয়েমি কাটাতে পারব এবং নিজের ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিয়ে অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হব।

আজ আমরা আপনাদের মাঝে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে  বিস্তারিত তুলে ধরব। যাতে আপনারা ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা পান। ফ্রিল্যান্সিং করে আপনাদের চাহিদা এবং দেশের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি করতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে স্বাধীন বা মুক্ত পেশা। অতি সহজ ভাবে বলতে গেলে, ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে কোন কোম্পানি বা ব্যক্তির অধীনে না থেকে নিজের সুযোগ-সুবিধা অনুযায়ী মুক্তভাবে কাজ করাকেই ফ্রিল্যান্সিং বলে। সাধারণত আপনি যখন কোন কোম্পানিতে চাকরি করবেন তখন আপনার সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত বাধ্য করার সময়ে  কাজ করতে হবে, কিন্তু ফ্রিলান্সিং পেশায় তা নয়। যারা ফ্রিল্যান্সিং করে তারা কোন কোম্পানির বেতনভুক্ত কর্মচারী নয়। আপনি ঘরে বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে এ ধরনের পেশায় নিযুক্ত হতে পারেন।  এবং এ ধরনের পেশা যে সেক্টরে আপনি কাজ করতে চান সে সেক্টর নিয়ে আপনি কাজ করতে পারবেন। 

সব থেকে বড় সুবিধা ও মজার বিষয় হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার -এ আপনি দেশে-বিদেশে যেকোনো ক্লায়েন্টের সাথে কাজ করার সুযোগ পাবেন। এটি আপনার কমিউনিকেশন এর দক্ষতা বৃদ্ধি করতে  সাহায্য করবে। বর্তমানে বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সিং করার মাধ্যমে  বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে বড় ধরনের ভূমিকা পালন করছে। তাই ফ্রিল্যান্সিং-কে  মাল্টি বিলিয়ন ডলারের বিশাল বাজার বলা হয়। 

ফ্রিল্যান্সিং কেন করবেন?

বর্তমানে বিশ্বে বেকারত্বের হার দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। তাই আপনি যদি আপনার মেধা এবং দক্ষতাকে কাজে লাগাতে চান তাহলে ফ্রিল্যান্সিং একটি অন্যতম মাধ্যম। কেননা আপনি পড়াশোনা বা চাকরির পাশাপাশি এ ধরনের কাজে নিযুক্ত হয়ে অর্থ উপার্জন করতে পারেন এবং দেশের বেকারত্বের হার কমাতে পারেন।  

তাছাড়া আপনি যে নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর দক্ষতা অর্জন করবেন সে নির্দিষ্ট বিষয়ের চাকরি পাওয়ার আগে যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং করে থাকেন, তাহলে আপনার কাজের প্রতি আগ্রহ এবং দক্ষতা আরো বেশি বৃদ্ধি পাবে। যদি আপনি কোনো ভালো চাকরি পেতে চান তখন আপনার এই ধরনের দক্ষতা আপনার কনফিডেন্স আরও বাড়িয়ে তুলবে। আপনার অতিরিক্ত অর্থ উপার্জনের সাহায্য করবে এবং আপনার ছোটখাটো অনেক চাহিদা পূরণে সাহায্য করবে।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব?

ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জানার পর আমাদের মনে যে প্রশ্নটা আছে সেটি হচ্ছে কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শিখবো? আপনি আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন উপায়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারেন। ইন্টারনেট দুনিয়ার বিভিন্ন মাধ্যম আছে যেখানে আপনি অর্থের বিনিময়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারেন। অথবা এমন অনেক বিভিন্ন মাধ্যম আছে যেখানে আপনি নিজে পড়াশোনা করে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন। এছাড়াও ফিন্যান্সিং শেখার জন্য বর্তমানে বহু ইনস্টিটিউট তৈরি করেছে যেখানে আপনি আপনার দক্ষতাকে বৃদ্ধি করতে পারেন এবং একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর দক্ষতা অর্জন করে ফ্রিল্যান্সিং পেশায় নিয়োজিত হতে পারবেন। 

ফ্রিল্যান্সিং আয় করার জন্য আপনাকে সবার প্রথমে কিছু নির্দিষ্ট কিছু পদক্ষেপ অবলম্বন করতে হবে। এবং এই পদক্ষেপগুলোর মাধ্যমে আপনার দক্ষতা বাড়িয়ে তুলতে হবে। চলুন জেনে নেই সেই পদক্ষেপ গুলো সম্পর্কে- 

বেসিক নলেজ

  • PC on/off
  • Office (Ms-word,PPT,Excel)
  • Slide
  • Typing
  • Keyboard shortcut
  • Screen shot
  • Paint resizing
  • Image conception
  • Notepad
  • Snipping tool
  • Search engine
  • Internet world
  • Gmail12.Printing
  • Browser function
  • FB account
  • Twitter
  • LinkedIn Profile
  • Keyword researching
  • PC trouble
  • Sign up
  • Online Registration process
  • Downloading
  • Basic software using
  • Modem, internet, Broadband, hotspot setup
  • JPG/PNG/GIF
  • Copy, Paste, Save Image and Document
  • Google chrome/ Mozilla Firefox
  • Email Marketing Basic Concept
  • Link
  • URL
  • Domain
  • Hosting
  • Zip file
  • Copywriting
  • Bandwidth
  • Theme/template
  • Icon Search
  • IDM Manager
  • Extension
  • Blog conception
  • Google drive
  • Proxy server
  • Browser Advanced setting
  • IP address
  • MAC address
  • Verification

ইন্টারমিডিয়েট নলেজ

  • Microworkers
  • Advanced  PowerPoint
  • Advanced Excel
  • Server
  • Canva.com
  • Outlook
  • VPN
  • VPS
  • Advanced Google search
  • Adsense knowledge
  • Tin Eye-Image copywriting
  • Keywords
  • CPC
  • PPC
  • CPM
  • YouTube Channel
  • Page Rank
  • Traffic
  • Blog
  • Google Trends
  • Forum
  • FB Page
  • FB group
  • MarketPlace
  • Payment Method
  • Photoshop/Illustrator Software
  • WordPress basic concept
  • Lead
  • Apps
  • Online Software
  • Extractor
  • Template
  • Theme
  • Basic HTML Tag
  • Notepad +
  • Pinterest acc.
  • Instagram acc.
  • Advanced PPT
  • Rapportive for mail
  • Tool kits

আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার উদ্দেশ্যে বেসিক এবং ইন্টারনেট নলেজ গুলো অর্জন করে থাকেন। তাহলে আপনি প্রফেশনাল ভাবে কাজ  করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সমূহ?

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনাকে আপনার নির্দিষ্ট একটি সেক্টর নিতে হবে। আপনি যে সেক্টর সম্পর্কে দক্ষতা অর্জন করতে ইচ্ছুক এবং আপনার সম্পূর্ণ মেধাকে কাজে লাগাতে পারেন সে বিষয়ে আপনার বেছে নেওয়া উচিত। ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য অনেক ধরনের সেক্টর বা কাজ রয়েছে তা হচ্ছে-

  • গ্রাফিক ডিজাইন (Graphics Design)
  • ওয়েব ডিজাইন
  • ওয়েব ডেভলপমেন্ট (Web Development)
  • অ্যাপ ডেভলপমেন্ট ( App Development)
  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO)
  • কন্টেন্ট রাইটিং (Content Writing)
  • ভিডিও এডিটিং (Video Editing)
  • ইন্টেরিয়র ডিজাইন (Interior Design

ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন?

ফ্রিল্যান্সিং করে আপনি যদি আয় করতে চান তাহলে আপনার দক্ষতা অর্জন করার পর দক্ষতাকে কাজে লাগাতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য আপনার অত্যাবশ্যকীয় কিছু জিনিসের প্রয়োজন। সেগুলো হচ্ছে-

  • একটি ভাল মানের সচল Computer
  • Internet Connection থাকতে হবে
  • একটি Router

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট/মার্কেটপ্লেস

আপনি যখন ফ্রিল্যান্সিং এর দক্ষতা অর্জন করবেন তখন আপনার মনে প্রশ্ন জেগে উঠবে আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ কিভাবে খুজে পাবেন? ফ্রিল্যান্সিং কাজ খুঁজে পাওয়ার জন্য ইন্টারনেট দুনিয়াতে কিছু মার্কেটপ্লেস রয়েছে। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে আপনি আপনার দক্ষতা অনুসারে কাজ খুঁজে পাবেন। আপনার এই ধরনের মার্কেটপ্লেসে কাজ করার জন্য সর্বপ্রথম আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। 

অ্যাকাউন্ট তৈরি করার নির্দিষ্ট কিছু ধাপ রয়েছে। এই ধাপ গুলো আপনার ওয়েবসাইট বা মার্কেটপ্লেস অনুসারে হয়। একেক ওয়েবসাইট বা মার্কেটপ্লেস অনুসারে একেক ধরনের নিয়ম বা পদ্ধতি রয়েছে। এ ধরনের মার্কেটপ্লেসগুলোতে আপনার সঠিক তথ্য দিয়ে একাউন্ট তৈরি করতে হবে। যদি কোনভাবে সঠিক তথ্য না দেন তাহলে আপনাকে সে মার্কেটপ্লেস থেকে ব্যান করে দেয়া হবে। তাই আপনাকে সঠিক তথ্য প্রদান করে মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে হবে। আপনি যে মার্কেটপ্লেস গুলোতে কাজ পাবেন সেগুলো হচ্ছে-

ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট কিভাবে খুলবো?

আপনি যখন মার্কেটপ্লেসের সন্ধান পাবেন তখন আপনার মার্কেটপ্লেসগুলোতে ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট তৈরি করতে হবে। আর এই অ্যাকাউন্ট তৈরি করার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রয়োজন হয়। তবে আপনার মার্কেটপ্লেস অনুসারে তত্ত্বের ভিন্নতা রয়েছে। একেক মার্কেটপ্লেসে একাউন্ট খোলার পদ্ধতি একেক রকম হয়। কিন্তু সকল মার্কেটপ্লেসে তথ্য খোলার জন্য বেসিক যে তথ্যগুলো প্রয়োজন হয় সেগুলো হচ্ছে-

  • আপনার Gmail Address
  • Unique Password (Don’t share anyone)
  • আপনার নাম
  • আপনার স্কিল Proved
  • আপনার Address
  • NID/Passport
  • Bank Account

ফ্রিল্যান্সিং শেখার বই 

আপনি বিভিন্নভাবে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারেন। সেটি আপনার নিজের উপর নির্ভর করবে।আপনি কোন উপায় ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চান। তবে বাজারে ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য অনেক ধরনের বই রয়েছে। যে বইগুলো বাংলাদেশের সফল ফ্রিল্যান্সার লিখে থাকে। আপনারা এই বইগুলো পড়ে ফ্রিল্যান্সিং করার সম্পূর্ণ সঠিক গাইডলাইন পেতে পারেন। তবে অবশ্যই তা সঠিকভাবে জেনে নিতে হবে আসলে ফ্রিল্যান্সিং বইটি আপনার জন্য সঠিক হবে নাকি। আপনি ফ্রিল্যান্সিং বই থেকে যা শিখতে পারেন তার থেকে ভালো হবে আপনি প্র্যাকটিক্যাল ভাবে যা শিখবেন।

আরো পড়ুন: মোবাইল দিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন

আপনার কাছে যদি ফ্রিল্যান্সিং বই থাকে তখন আপনাকে এই বইটি যখন তখন যে কোন সময় যে কোন প্রশ্নের উত্তর খুঁজে দিতে সাহায্য করবে কিন্তু প্র্যাকটিক্যাল ভাবে শেখার জন্য বা প্র্যাকটিস করার জন্য আপনাকে এই বইটি তেমন সাহায্য করবে না। সেজন্য আপনাকে প্রতিনিয়ত ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য প্র্যাকটিস করে যেতে হবে। যাতে আপনার দক্ষতা বৃদ্ধি পায়। 

উপসংহার: ফ্রিল্যান্সিং করে আপনি আপনার ক্যারিয়ার গড়ে তুলুন এবং দেশের ভবিষ্যত উজ্জ্বল করুন। আমরা আপনাদের ফ্রিল্যান্সিং কি? এবং ফ্রিল্যান্সিং এর  ব্যাপারে সম্পূর্ণ ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আপনি  এখন যে সেক্টরে কাজ করতে চান সে সিলেক্ট নির্ধারণ করে সেই সেক্টরে দক্ষতা অর্জন করে ফ্রিল্যান্সিং দুনিয়াতে যেতে পারেন। যেখানে আপনি দেশে-বিদেশে বিভিন্ন ধরনের ক্লায়েন্টের সাথে কাজ করতে পারবেন। এবং ডলার উপার্জন করে দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখতে পারবেন।

আপনি অযথা বসে না থেকে বা বেকার হয়ে না ঘুরে আপনি কাজ শিখে আপনার পরিবারের পাশে দাড়াতে পারেন এবং দেশের বেকারত্ব হ্রাস পারেন। তবে আপনাকে এটা মনে রাখতে হবে সম্পূর্ণ ধারণা রেখে ফ্রিল্যান্সিং জগতে যেতে হবে। নতুবা আপনি ওই জগতে টিকে থাকতে পারবেন না। এর পাশাপাশি আপনাকে ইংরেজি ভাষার প্রতি দক্ষতা থাকতে হবে। কারণ আপনি যখন বাহিরের ক্লায়েন্টের সাথে কথা বলবেন তখন আপনাকে ইংরেজি ভাষায় কথা বলতে হবে। নতুবা তারা আপনার ভাষা বুঝতে পারবে না।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex