vlxxviet mms desi xnxx

ডোমেইন হোস্টিং কি | ডোমেইন হোস্টিং কেনার আগে

0

ডোমেইন হোস্টিং কি | ডোমেইন কেনার আগে

যারা ওয়েব সাইট নিয়ে কাজ করতে চান অথবা ওয়েবসাইট এর ব্যবসা করতে চান তাদের জন্য ডোমেইন এবং হোস্টিং খুবই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ডোমেইন এবং হোস্টিং ছাড়া ওয়েবসাইট তৈরি করা যায় না। ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য প্রথমে ডোমেইন এবং হোস্টিং অবশ্যই প্রয়োজন হয়।

ব্যক্তিগত বা ব্যবসায়িক প্রয়োজনে ডোমেইন হোস্টিং করার জন্য আমরা বিভিন্ন প্রাইভেট কোম্পানি থেকে তা কিনে থাকি। তবে ডোমেইন আর হোস্টিং এক নয়। যদিও এগুলা ওয়েবসাইট এর জন্য প্রয়োজন। কিন্তু ডোমেইন কি? ডোমেইন কিভাবে কাজ করে? এসকল সহ আরো অনেক প্রশ্নের উত্তর আজ আমরা আপনাদেরকে দিব। ডোমেইন ও হোস্টিং আপনার সাইটের জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ এগুলো সহ নানা সমস্যার সমাধান আজ আমরা আলোচনা করব। যাতে করে আপনি নির্ভয়ে এবং জামেলা ছাড়া ব্যক্তিগত বা ব্যবসায়ের কাজে ওয়েবসাইট পরিচালনা করতে পারেন।

ডোমেইন এবং হোস্টিং কি?

ডোমেইন কি?

আপনি যখন আপনার ব্যক্তিগত অথবা ব্যবসার কাজের জন্য ওয়েবসাইট তৈরী করবেন সেই ওয়েবসাইট তৈরি করার পূর্ব মুহূর্তে আপনার ওয়েবসাইটের একটি নাম নির্ধারণ করতে হবে। আর এই নাম নির্ধারণ করাই হচ্ছে ডোমেইন। আপনার যে নামে ওয়েবসাইট খুঁজে পাবে সেই নাম হল ডোমেন।

উদাহরণস্বরূপ বলা যায় আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করার জন্য একজন ব্যক্তির www.xyz.com নামে ওয়েবসাইটটি খুঁজে পাবে মূলত সেই নামটি হচ্ছে ডোমেইন।

ডোমেইন এবং হোস্টিং এর পার্থক্য

আপনি যে ডোমেইনটি ব্যবহার করবেন সে ডোমেইনটি শুধুমাত্র .com দিয়ে হবে তেমনটা নয়। আপনার ওয়েবসাইট এর ধরন অনুসারে  ডোমেইনের এক্সটেনশন ব্যবহার করা হয়। যেমন: আপনি কোন অরগানাইজেশন পরিচালনা করার জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করতে চাচ্ছেন তখন আপনাকে .org  ব্যবহার করতে হবে অথবা আপনি কোন নেটওয়ার্ক সাইটের জন্য আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে চাচ্ছেন তখন আপনাকে .net ব্যবহার করতে হবে অথবা আপনি কোন ইনফরমেশন শেয়ার এর জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চাচ্ছেন তখন আপনাকে .info ব্যবহার করতে হবে।

হোস্টিং কি?

আমরা অনেক সময় ডোমেইন এবং হোস্টিং একসাথে গুলিয়ে ফেলি। ডোমেন ছাড়া হোস্টিং হয় কিন্তু হোস্টিং ছাড়া আপনার ওয়েবসাইট মানুষের কাছে পৌছাবে না। আপনার ওয়েবসাইটের জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটটি পরিচালনা করার জন্য একটি পিসিতে নির্দিষ্ট পরিমাণ জায়গা রাখতে হয়। যে জায়গায় আপনার ওয়েবসাইটের সকল ডাটা জমা থাকে এবং গ্রাহক বা দর্শক তা ২৪ ঘন্টা ৩৬৫ দিন যে কোনো সময় আপনার ও্যেবসাইটে ভিজিট করতে পারবে। আর এই পিসিটি চালু করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ডোমেইন এবং হোস্টিং ওয়েবসাইট কোম্পানি  গুলো  সুবিধা দিয়ে থাকে। হোস্টিং কোম্পানি বিভিন্ন মেয়াদে হোস্টিং সার্ভিস প্রদান করে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন ধরনের হোস্টিং কোম্পানি তাদের মূল্য নির্ধারণ করে হোস্টিং সার্ভিস দিয়ে থাকে। তারা তাদের নির্দিষ্ট পিসিতে নির্দিষ্ট পরিমান জায়গা আপনাকে অর্থের বিনিময় প্রদান করে । আর যদি আপনি আপনার এই ব্যবস্থা কার্যক্রম নিজের বাসা পিসিতে করতে চান তাহলে আপনি করতে পারবেন। তবে আপনি আপনার পিসিতে ওয়েবসাইট রাখলে সেখানে আপনার কম্পিউটার বন্ধ বা ইন্টারনেট সংযোগ না থাকলে আপনি ভিজিটরদের কাছে পৌঁছতে পারবেন । তাই আপনাকে পিসি সবসময় চালু রাখতে হবে ।

বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে হোস্টিং কোম্পানি গুলো হোস্টিং সার্ভিস দিয়ে থাকে। যেমনঃ শেয়ার হোস্টিং, ডেডিকেটেড সার্ভার,  ডিপিএস ইত্যাদি। আপনার ওয়েবসাইটের প্রয়োজন অনুসারে আপনাকে হোস্টিং স্পেস কিনতে হবে। তবে এই হোস্টিং সার্ভিস নেয়ার আগে অবশ্যই আপনাকে সঠিক ভাবে যাচাই বাছাই করে নিতে হবে।

ডোমেইন এবং হোস্টিং এর পার্থক্য

ডোমেন এবং হোস্টিং এর পার্থক্য নিম্নে দেয়া হলঃ

ডোমেইন  হোস্টিং 
ওয়েবসাইটের নামকে ডোমেইন বলে। ওয়েবসাইট সকলের কাছে পৌঁছানোর প্রক্রিয়াকে হোস্টিং বলে। 
এটি ইন্টারনেটে নাম ঠিকানা দিয়ে পরিচয় বহন করে। এটি কয়েকটি হাই-স্পিড ইন্টারনেট সংযোগগুলি ধারণ করে।
এটি না ক্রয় করলেও আপনি অর্থ উপারজন করতে পারবেন। কিন্টি এটি না কিনলে আপনার অর্থ উপারজন হবে না।

 

ডোমেইন হোস্টিং এর দাম

ডোমেইন এবং হোস্টিং সম্পূর্ণ আলাদা দামের হয়ে থাকে। আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেইন একবার কিনলেই হয় কিন্তু হোস্টিং মাসিক বা বাৎসরিক ভিত্তিতে হয়। ডোমেইন বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে।  আর এই ডোমেইন এর ধরন ভেদে ডোমেইনের না দাম নির্ধারণ করা হয়। তবে বাংলাদেশের .com ডোমেইন এর দাম হচ্ছে ১০০০-১৫০০ টাকা। কিন্তু এর চেয়ে যদি কম দামে কেউ কিনতে চায় তাহলে তার সাথে কিছু শর্ত প্রযোজ্য করে দেয়া হয়।

আপনারা চাইলে দেশের বাহিরের কোম্পানিগুলো থেকে ডোমেইন কিনতে পারেন। তার মধ্যে বিখ্যাত কোম্পানি হচ্ছে Godaddy । Godaddy কোম্পানি বিশ্বের সবচেয়ে বেশি হোস্টিং বিক্রি করে থাকে এবং এর ডোমেইনগুলো সবাই খুব পছন্দ করে। আর এর সার্ভিস এর মূল্য বেশি। যেহেতু এর সার্ভিস খুব ভাল তাই এর ডোমেইন গুলো নিমিষেই শেষ হয়ে যায়।

তবে আপনারজা Namecheap থেকেও ডোমেইন কিনতে পারেন। আর Namecheap থেকে যদি আপনারা .com ডোমেইন কিনেন তাহলে এর দাম পড়বে ৯ ডলার। মূলত ডোমেইনের কোম্পানিভেদে এবং দেশভেদে ডোমেইন এর দাম নির্ধারণ করা হয়। আপনি যদি আপনার কোম্পানী বা নিজস্ব কোন ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে চান তাহলে DianaHost নামক  সাইট থেকে প্রতিমাসে ৯৯ টাকা চার্জ দিয়ে নিতে পারেন।

আরো পড়ুন: এফিলিয়েট মার্কেটিং কি

আমাদের দেশে হোস্টিং এর খরচ তুলনামূলকভাবে অনেক কম। তবে যদি দেশের বাইর থেকে হোস্টিং করতে চান তাহলে বাৎসরিক চার্জ দিয়ে নিলে ভাল হয়। কারন এর খরচ তুলনামূলকভাবে অনেক কম বলে আমার কাছে মনে হয়। আর ডোমেইন কেনা ডোমেইন হোস্টিং করার জন্য Namecheap এর  কাস্টমার সার্ভিস দুর্দান্ত হয় যা আপনার সিদ্ধান্তকে প্রাধান্য দেয়।

বাংলাদেশের XeonBD নামক একটি সার্ভিস রয়েছে যা বাংলাদেশে খুবই ভালো সার্ভিস দিয়ে থাকে। আর এটিকে আন্তর্জাতিক মানের সার্ভিস বলে গণ্য করা হয়। সেখান থেকে যদি আপনি হোস্টিং এর জন্য মাসিক প্যাকেজ নিতে চান তাহলে আপনার সর্বনিম্ন দাম পড়বে ১৫০ টাকা।

ডোমেইন হোস্টিং ব্যবসা

বর্তমানে অনলাইন দুনিয়ায় ব্যবসা করার জন্য ওয়েবসাইটের ডোমেইন এবং হোস্টিং ব্যবসা খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এ ধরনের ব্যবসা করে অনেক লাভজনক হওয়া যায় বলে এ ধরনের ব্যবসায় বেশিরভাগ আইটি সেক্টরের সদস্যরা লিপ্ত হচ্ছে। তবে ডোমেইন হোস্টিং এর ব্যবসা করার আগে আপনাকে কিছু বিষয়ের উপর নজর রাখতে হবে।

এক নাম্বার হচ্ছে আপনার, দুই নাম্বার হচ্ছে আপনার বিজনেস প্ল্যান। আর আপনি যদি একদম কম বাজেট নেন তাহলে রিসেলার নিয়ে আপনার ব্যবসার প্রথম অবস্থায় শুরু করতে পারেন। এরপর আস্তে আস্তে ব্যবসার বাজেট বাড়াতে বাড়াতে ডিপিএস বা ডেডিকেটেড সার্ভার নিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন। আর আপনার ব্যবহার যদি দর্শকের কাছে খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে তাহলে  আপনার ব্যবসায় আরো আস্তে আস্তে সুন্দর করে বৃদ্ধি করতে পারেন।

তবে অবশ্যই মনে রাখতে হবে সঠিক জ্ঞান নিয়ে এই ব্যবসায় শুরু করতে হবে। 

ফ্রি ডোমেইন হোস্টিং 

বর্তমানে দেশে এবং দেশের বাইরে বিভিন্ন ধরনের ফ্রি ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানি রয়েছে। দেখা যায়, অনেকেই শখের বসে একটি ওয়েবসাইট খুলে থাকে। কিন্তু তারা ডিস্ক স্পেস ব্যান্ডউইথের কথা ভাবে না।  পরবর্তীতে তারা বিভিন্ন ধরনের ভোগান্তিতে পরে। এ ধরনের ফ্রি ডোমেইন এবং হোস্টিং তারাই করে যারা  মূলত তারাই যারা ই-কমার্স ওয়েবসাইট খুলতে চায় এবং ব্লগিং সাইট খুলতে চাই। আর আপনি যদি ই-কমার্স ওয়েবসাইট খুলে নেন  এবং ভিডিও দিতে চান তাহলে আপনার ডিস্ক স্পেস বেশি প্রয়োজন হয়।

আরো পড়ুন: অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়

তবে নতুনদের জন্য Free Domain Hosting বেশ উপকারী। কারণ তারা তাদের বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট লিখে এসইও করে বিভিন্ন সাইটের মান উন্নয়নের জন্য নিজেদের দক্ষতা যাচাই করতে পারে।  তারা নিজেদের দক্ষতা বাড়াতে পারেন। মূলত যারা নিজেদের দক্ষতা এবং নিজেদের ওয়েবসাইট সম্পর্কে জ্ঞান আরো বৃদ্ধি করতে চায় তারাই ফ্রি ডোমেইন এবং হোস্টিং করে থাকে।

কম দামে ডোমেইন হোস্টিং

আপনারা যারা কম দামে ডোমেইন হোস্টিং করতে, তারা আরেকটু ভালো করে রিসার্চ করে কোম্পানিগুলোর সাথে কথা বলতে পারেন। যেখানে আপনার সাধ্যের মধ্যে ডোমেইন হোস্টিং পাবেন ঠিক সে কোম্পানির সাথে কথা বলতে পারেন। এবং তাদের কাছ থেকে আপনার Domain Hosting ক্রয় করতে পারেন। তবে আপনার মাথায় এটাও রাখতে হবে যাতে কম দামে ডোমেইন হোস্টিং করার ফলে টার্গেট যাতে মিস না হয়। কারণ আপনার টার্গেটই আপনার ওয়েবসাইটটিকে মানুষের কাছে পউছে দিবে। তাই আপনারা অধিক সুবিধা সম্পন্ন বিচার করে কম দামে ডোমেইন হোস্টিং পড়তে পারেন।

ডোমেইন হোস্টিং কেনার আগে

ডোমেইন কেনার আগে আপনাকে যে বিষয় গুলোর উপর নজর রাখতে হবে তা হচ্ছেঃ

Domain Hosting কোম্পানির রিভিউ:

যে কোনো ব্যক্তি বা চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে বিভ্রান্ত না হয়ে ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানির  রিভিউগুলো দেখে নিন। রিভিউ দেখার জন্য আপনি তাদের ফেসবুকের পেইজ এবং তাদের ওয়েবসাইটে ঘুরে আসতে পারেন। এতে যদি আপনার তাদের রিভিউগুলো দেখে বিশ্বাসযোগ্য হলে তাদের কাছে থেকে ডোমেইন হোস্টিং কিনবেন। নতুবা কিনবেন না।

কোম্পানির কাস্টমার সার্ভিস:

আপনি যদি ওয়েবসাইট পরিচালনায় নতুন হয়ে থাকেন। তাহলে আপনার ওয়েবসাইট পরিচালনা করতে প্রথম অবস্থায় কথি হয়ে যাবে এবং আপনি ভিবিন্ন সমস্যা পরতে পারেন। তাই আপনাকে বিক্রয় পরবর্তী সম্য ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানির সেবা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। আর জন্নই আপনাকে ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানির কাস্টমার সার্ভিস সম্পর্কে ভাল করে খোঁজ খবর নিয়ে ডোমেইন হোস্টিং কেনা উচিত।

ডোমেইন হোস্টিং লোকেশন:

ওয়েবসাইট্টি কন দেশের জন্য তৈরি করেছেন এবং এটি কাদের কাছে বেসি জনপ্রিয় হবে বিচার করে আপনার লকেশন ঠিক করতে হবে। তাঁর জন্য আপনি চাইলে এই  bitcatcatcha.com এ যেকোন সাইটের এড্রেস দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঐ সাইটটি এক্সেস করে আপনাকে সার্ভারের গতি দেখাবে। আর যে দেশে সবচেয়ে কম সময় লাগে,সেই সাইটটির সার্ভার ঐ দেশের কাছাকাছি হবে।

ডোমেইন হোস্টিং ওয়েবসাইটের সংখ্যা:

হোস্টিং প্যাকেজে সম্পর্কে জানতে হবে। কারন আপনার যদি একাধিক ওয়েবসাইট থাকে তাহলে আপনাকেএটি সুবিধা প্রদান করবে।

Domain Hosting SSL Certificate:

ডোমেইন হোস্টিং এর SSL Certificate একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনার সাইটের নিরাপত্তার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়।  https প্রটোকল আপনাকে নিরাপত্তা দিবে। আর এতি ফ্রি দিয়ে থাকে। যদি ফ্রি না দেয় তাহলে এটি কিনবেন না।

হোস্টিং স্পেস:

আপনার ওয়েবসাইটের উপর হোস্টিং স্পেস নির্ধারণ করে। তবে  বেসিক প্যাকেজ গুলো কমপক্ষে ১ জিবি স্পেস থাকে। আর আপনার ছোট ওয়েবসাইটের জন্য এই স্পেস যথেষ্ট। তাছাড়া আপনার সাইটের আকারের উপর নির্ভর করবে এর স্পেস কত হবে।

ডোমেইন হোস্টিং ইমেইল:

আপনি যখন ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানির থেকে সার্ভিস নিবেন তখন তারা আপনাকে ফ্রি ইমেইল দিবে। এতি বুজে নিবে।উপরিউক্ত বিষয় গুলো উপর নজর রাখলেই আপনি সহজেই ডোমেইন হোস্টিং কিনতে পারবেন।

উপসংহার: আশা করি আপনারা আমাদের এই আর্টিকেল টা পরে আপনার সমস্যার সমাধান খুঁজে পেয়েছে। কারন আপনারা একদম বেসিক থেকে শুরু করে ব্যবসায় এবং ডোমেইন হোস্টিং ক্রয় করার বেপারে সম্পূর্ণ গাইডলাইন দেয়ার চেষ্টা করেছি । যা আপনার ডোমেইন হোস্টিং কেনার কাজে এবং ব্যবসায় করার ক্ষেত্রে কাজে আসবে।

আমরা আপনাদের জনপ্রিয় কিছু ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানির কথা বলেছি । যে গুলো আসলেই খুব ভ্ল সার্ভিস প্রদান করে জা আপনার ওয়েবসাইটটিকে আরও প্রসার করতে সাহায্য করবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos
pornvideos
xxx sex